পেনাইল ক্যান্সার - Penile Cancer in Bengali

Dr. Ayush PandeyMBBS,PG Diploma

May 03, 2019

March 06, 2020

পেনাইল ক্যান্সার
পেনাইল ক্যান্সার

পেনাইল ক্যান্সার কি?

পেনাইল ক্যান্সার একটি রোগ, যাতে পেনিস বা লিঙ্গের টিস্যুতে ম্যলিগন্যান্ট বা ক্যান্সারযুক্ত কোষগুলির অনিয়ন্ত্রিতভাবে সংখ্যাবৃদ্ধি হয়। এটি একটি বিরল ধরণের ক্যান্সার, যা চল্লিশোর্ধ্ব পুরুষদের মধ্যে দেখা যায়। সুন্নত বা খৎনা ক্যান্সারের ঝুঁকি কমিয়ে দেয় আর তাই মুসলমান এবং ইহুদি পুরুষদের মধ্যে পেনাইল ক্যান্সার সাধারণ ব্যাপার নয়। এর সঙ্গে জড়িত কোষের ওপর ওপর ভিত্তি করে পেনাইল ক্যান্সারকে বিভিন্ন প্রকারে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়। লিঙ্গের ত্বককে আক্রান্ত করা ক্যান্সারকে লিঙ্গের মেলানোমা বলা হয়।

এর প্রধান লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি কি?

লিঙ্গ স্পর্শ করলে অস্বাভাবিক বৃদ্ধি বা পিণ্ড অনুভব করা পেনাইল ক্যান্সারের প্রাথমিক লক্ষণগুলির মধ্যে একটি। অন্যান্য লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে রক্তপাত অথবা অনবরত দুর্গন্ধযুক্ত স্রাবের নির্গমন, যা একসঙ্গে অনেক সপ্তাহ চলার পরও সারে না, লিঙ্গের মাথায় ফুসকুড়ি, লিঙ্গের গায়ে ঘা বা অনিয়মিত ক্ষত অথবা অস্বাভাবিকভাবে লিঙ্গে ব্যথা। রোগ যত মাথাচাড়া দেয় এইসব উপসর্গের সঙ্গে স্পষ্ট কারণ ছাড়া ওজন হ্রাস, ক্লান্তি এবং প্রস্রাবে সমস্যা দেখা দেয়।

এর প্রধান কারণ কি?

পেনাইল ক্যান্সার হওয়ার নির্দিষ্ট কারণ পুরোপুরি বোঝা যায়নি; তবে এই রোগের প্রবণতা বৃদ্ধি করে এমন কিছু ঝুঁকিপূর্ণ কারণ হলো ধূমপান এবং ফিমোসিস হওয়া, এই অবস্থায় লিঙ্গের ফোরস্কিন বা উপরের চামড়া লিঙ্গের মাথায় আটকে যায়, আর তাতে লিঙ্গে বারবার সংক্রমণের প্রবণতা সৃষ্টি হয় এবং ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়ে যায়। অন্যান্য কারণগুলির মধ্যে রয়েছে বার্ধক্য, লিঙ্গে আঘাত এবং যৌনাঙ্গে জরুল হওয়ার ইতিহাস।

এটি কিভাবে নির্ণয় এবং চিকিৎসা করা হয়?

সাধারণ চিকিৎসকের কাছে চিকিৎসা করানোর পরেও উপরের উল্লেক্ষিত কোনও একটি উপসর্গও যদি না সারে, তাহলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির একজন বিশেষজ্ঞ বা ইউরোলজিস্টের পরামর্শ নেওয়া উচিত, তিনি বিস্তারিতভাবে পরীক্ষা এবং অনুসন্ধান করে দেখবেন। প্রাথমিক এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অনুসন্ধানের মধ্যে একটি হল লোকাল বায়োপসি করানো। বায়োপসিতে আক্রান্ত অঙ্গ থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয় এবং তা অণুবিক্ষণ যন্ত্রের তলায় পরীক্ষা করা হয় ক্যান্সার কোষ অথবা অন্যান্য রোগের উপস্থিতি জানার জন্য। একবার বায়োপসি হয়ে যাওয়ার পর একগোছা স্ক্যান করানো হয়, যেমন - ক্যান্সারের সঠিক বিস্তার এবং সীমা জানার জন্য পিইটি স্ক্যান বা সিটি স্ক্যানের পরামর্শ দেওয়া হয়। এইভাবে, লসিকা গ্রন্থির সংযুক্তি, বিস্তার এবং সাধারণ টিস্যুর ওপর ক্যান্সারের আক্রমণের প্রবলতার ওপর ভিত্তি করে ক্যান্সারকে স্টেজ বা পর্যায় নির্ধারণ করা হয়। স্টেজ ক্যান্সারের সম্পর্কে পূর্বানুমান এবং সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির আরোগ্য লাভের সম্ভাবনার স্পষ্ট ধারণা পেতে সাহায্য করে।

আক্রান্ত অংশের আকার এবং ক্যান্সারের বিস্তারের ওপর ভিত্তি করে চিকিৎসা নির্ভর করে। লিঙ্গের মাথার টিউমারের জন্য এবং তা লিঙ্গত্বকের মধ্যেই সীমিত হয়, ওই অংশটি বাদ দিতে লেজার সার্জারি করা হয়। তারপর স্কিন গ্রাফ্ট বসানো হয়। ক্যান্সারের উচ্চ পর্যায়ে চিকিৎসা পদ্ধতিগুলির মধ্যে রয়েছে কেমোথেরাপি, রেডিয়েশন থেরাপি এবং সার্জারি।



তথ্যসূত্র

  1. Hernandez BY, Barnholtz-Sloan J, German RR, et al. Burden of invasive squamous cell carcinoma of the penis in the United States, 1998–2003. Cancer. 2008;113:2883–2891. PMID: 18980292
  2. Schoen EJ. The relationship between circumcision and cancer of the penis. CA Cancer J Clin. 1991;41:306–309. Volume41, Issue5 September/October 1991 Pages 306-309
  3. Kochen M, McCurdy S. Circumcision and the risk of cancer of the penis. A life-table analysis. Am J Dis Child. 1980;134:484–486. 1980
  4. Daling JR, Madeleine MM, Johnson LG, et al. Penile cancer: importance of circumcision, human papillomavirus and smoking in in situ and invasive disease. Int J Cancer. 2005;116:606–616. PMID: 15825185
  5. National Cancer Institute [Internet]. Bethesda (MD): U.S. Department of Health and Human Services; Penile Cancer—Patient Version.

পেনাইল ক্যান্সার ৰ ডক্তৰ

David K Simson David K Simson Oncology
11 वर्षों का अनुभव
Dr. Nilesh Ranjan Dr. Nilesh Ranjan Oncology
3 वर्षों का अनुभव
Dr. Ashok Vaid Dr. Ashok Vaid Oncology
31 वर्षों का अनुभव
Dr. Ashu Abhishek Dr. Ashu Abhishek Oncology
12 वर्षों का अनुभव
অনেক সময় অডিও র জন্য মুহূর্তের বিলম্ভ হতে পারে

পেনাইল ক্যান্সার জন্য ঔষধ

পেনাইল ক্যান্সার के लिए बहुत दवाइयां उपलब्ध हैं। नीचे यह सारी दवाइयां दी गयी हैं। लेकिन ध्यान रहे कि डॉक्टर से सलाह किये बिना आप कृपया कोई भी दवाई न लें। बिना डॉक्टर की सलाह से दवाई लेने से आपकी सेहत को गंभीर नुक्सान हो सकता है।