myUpchar प्लस+ के साथ पूरेे परिवार के हेल्थ खर्च पर भारी बचत

আত্মহত্যার প্রবণতা কি?

আত্মহত্যা হল নিজের জীবন নিজের হাতে শেষ করে দেওয়া। একজন মানুষের আত্মহত্যা করার ভাবনা বা পরিকল্পনা করার প্রবৃত্তিকে আত্মহত্যার প্রবণতা বলে।

এর প্রধান লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি কি কি?

যদিও সরাসরিভাবে বোঝার কোন রাস্তা নেই যে একজন আত্মহত্যা করতে পারে, কিন্তু কিছু সতর্কতা মূলক সংকেত আছে যা আমাদের লক্ষ্য রাখা উচিত যেমন:

  • সেই ব্যক্তি হয়তো নিজেকে সবার থেকে আলাদা করে রাখবে এবং বিতৃষ্ণা দেখাবে দৈনন্দিন কাজের প্রতি।
  • হয়তো কারুর নিঃসঙ্গ বোধ হতে পারে, অসহায় লাগতে পারে এবং নিজের জীবনে খুশি হওয়ার কোন কারণ খুজে পেতে নাও পারে।
  • ঘন ঘন মেজাজ বদল একটা লক্ষণ যার লক্ষ্য রাখা প্রয়োজন।
  • কেউ হয়তো মৃত্যুর বিষয়ে ঘন ঘন কথা বলে, এবং হয়তো বা সে এর জন্য তৈরি হচ্ছে বা পরিকল্পনা করছে।
  • একজন ব্যক্তি যে আত্মহত্যা করার কথা ভাবছে কোন ড্রাগ বা মাদকদ্রব্যের বা অন্য কোন আসক্তির কবলেও পড়তে পারে।
  • গ্লানি, অসহায়তা বা নিজে যোগ্য না ভাবা কথা ভাবাও হল সাধারণ কিছু লক্ষণ যেটা আত্মহত্যা যারা করতে চায় তাঁদের মধ্যে দেখা গেছে।

এর প্রধান কারণগুলি কি কি?

কেউই একটা মাত্র কারণ দিতে পারে না নিজের জীবন শেষ করে দিতে চাওয়ার পিছনে। তাও, শতর্কতামূলক লক্ষণ হিসাবে, কিছু ঝুঁকির কারণ আছে যা উক্ত ব্যক্তিকে বাধ্য করে এই সব চিন্তাভাবনা করতে।

  • খুব বড় কিছু হারিয়ে ফেলা, বা শারীরিক আঘাত বা কোন মানসিক আঘাত আত্মহত্যার কথা ভাবতে বাধ্য করে।
  • আর্থিক সমস্যা, চাকরি জীবনে সন্তুষ্টি না পাওয়া বা কজের সঙ্গে জড়িত কোন সমস্যাও মানুষকে আত্মহত্যার কথা ভাবতে বাধ্য করে।
  • কেউ এজন্যও আত্মহত্যার কথা ভাবে কারণ সে অনেক দিন ধরে কোন বড় শারীরিক বা মানসিক অসুস্থতায় ভুগছে, বা যদি তাঁর দীর্ঘদিন ধরে স্বাস্থ্যের কোন সমস্যা থাকে।
  • পারিবারিক ঝামেলা, সাংসারিক সমস্যা বা ঝগড়া, বা কোন ভালোবাসার মানুষের সাথে মনমালিন্য কাউকে অসহায় এবং আত্মহত্যা করার কথা ভাবতে বাধ্য করে।

এটি কিভাবে নির্ণয় করা হয় এবং এর চিকিৎসা কি?

একজনের আচরণের ওপর নির্ভর করে, তার ইতিহাস এবং মনভাবের ওপর নির্ভর করে, বিশেষজ্ঞ বলতে পারেন যে সেই ব্যক্তির আত্মহত্যা করার প্রবণতা আছে কি না। তারা আপনার ব্যক্তিগত জীবনের, স্বাস্থ্যের সমস্যার, আপনি কি কি ওষুধ খান বা আগে খেয়েছেন এবং অন্য কোন প্রয়োজনীয় তথ্য জানতে চাইবেন।

  • আত্মহত্যার প্রবণতার চিকিৎসা করা মানে সেই ভাবনাগুলো যা এই অবস্থার কারণ তার চিকিৎসা করা।
  • এটা অনেকভাবে করা যায় যেমন বিভিন্ন ধরণের থেরাপি এবং মাঝে মাঝে ওষুধ খাওয়াও দরকার হতে পারে।
  • সাইকোথেরাপি এবং কগনেটিভ বিহেভরিয়াল থেরাপি হল সেই ধরণের থেরাপি যা সাহায্য করতে পারে।
  • অভ্যন্তরীণ শারীরিক অসুস্থতার চিকিৎসা করা খুবই দরকার।
  • অ্যান্টি-ডিপ্রেসেন্টের মতো ওষুধ হয়তো দেওয়া হতে পারে যদি দরকার পড়ে।
  • এটা খুবই জরুরী একটি মানুষের জন্য যে সে নিজের জীবনযাপনে ইতিবাচক পরিবর্তন আনে, জিনিসপত্রের অপচয় বন্ধ করে এবং এমন কিছু করে সময় কাটায় যা তাকে খুশি করে যেমন কোন শখ, বা নিজের বন্ধু এবং পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানো।
  1. আত্মহত্যা প্রবণতা জন্য ডাক্তার
Dr.Drajay Vashishtha

Dr.Drajay Vashishtha

साइकेट्री

Dr. Amar Golder

Dr. Amar Golder

साइकेट्री

Dr. Arvind Gautam

Dr. Arvind Gautam

साइकेट्री

আপনার অথবা আপনার পরিবারে কারোর কি এই রোগ আছে? দয়া করে একটা সমীক্ষা করুন এবং অন্যদের সাহায্য করুন।

और पढ़ें ...