myUpchar प्लस+ के साथ पूरेे परिवार के हेल्थ खर्च पर भारी बचत

নিউরোলেপটিক ম্যালিগন্যান্ট সিন্ড্রোম কি?

নিউরোলেপটিক ম্যালিগন্যান্ট সিন্ড্রোম (এনএমএস) একটি সম্ভাব্য প্রাণঘাতী অবস্থা, যা অ্যান্টিসাইকোটিক ওষুধ ব্যবহারের ফলে হয়। আলজাইমার, পারকিনসনিজম, বাইপোলার ডিসঅর্ডার, অবসাদউদ্বিগ্নতার মতো রোগের চিকিৎসায় অ্যান্টিসাইকোটিক ওষুধ ব্যবহৃত হয়। এটি একটি বিরল অবস্থা, যা সাধারণত পুরুষদের মধ্যে দেখা যায়। যদি এর চিকিৎসা না করা হয়, তাহলে এর কারণে মৃত্যুও ঘটতে পারে; সুতরাং এনএমএসের প্রথম লক্ষণেই অবিলম্বে হাসপাতালে ভর্তি করা প্রয়োজন।

ভারতীয় জনসংখ্যার মধ্যে এনএমএসের ঘটনা অ্যান্টিসাইকোটিক ওষুধ ব্যবহারের প্রতি 1000টি ঘটনায় 1.40-.41 টি ক্ষেত্রে পাওয়া যায়।

এর প্রধান কারণ ও উপসর্গগুলি কি কি?

অ্যান্টি-সাইকোটিক ওষুধ নেওয়া শুরু বা মাত্রা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি উপসর্গ উপলব্ধি করতে শুরু করেন। 1-2 সপ্তাহের মধ্যেই সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি যেসব উপসর্গগুলি প্রত্যক্ষ করতে পারেন:

  • 380 ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রা সহ জ্বর, কিন্তু 400 ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের কম।
  • মাংসপেশীতে কাঠিন্যতা।
  • কাঁপুনি।
  • নড়াচড়াতে অসুবিধা।
  • কথাবার্তায় অসুবিধা।
  • বিভ্রান্তি।
  • হৃদগতি বৃদ্ধি।
  • শ্বাস-প্রশ্বাসের মাত্রা বৃদ্ধি।
  • মানসিক অশান্তি।
  • অস্বাভাবিক রক্তচাপ।
  • ঘাম ঝরা।
  • অনৈচ্ছিক মুত্রত্যাগ (অসংযম)।
  • ক্রিয়েটিনিন কাইনিনের মাত্রা বৃদ্ধি।
  • মূত্রে প্রোটিন।

এর প্রধান কারণ কি কি?

অ্যান্টিসাইকোটিক্স দিয়ে ডোপামিন রিসেপ্টরের অবরোধের ফলে এনএমএস ঘটে। ডোপামিন হলো স্নায়ুর বার্তা প্রেরণে সহায়ক উপাদান। স্নায়ু রিসেপ্টরে ডোপামিনের অনুপস্থিতির থেকে এনএমএস হয়। এই প্রক্রিয়ার সঠিক কারণ এখনও অজানা।

অন্যান্য যে কারণগুলি এনএমএসের ঝুঁকির দিকে ঠেলে দিতে পারে:

  • 2 বা ততোধিক অ্যান্টি-সাইকোটিক্সের ব্যবহার।
  • হঠাৎ করে অ্যান্টি-সাইকোটিক্সের মাত্রা বৃদ্ধি।
  • অ্যান্টি-সাইকোটিক্স ওষুধের মৌখিকভাবে গ্রহণ না করা।
  • ডিহাইড্রেশন বা জলশূন্যতা
  • চেতনানাশক ওষুধের ব্যবহার।
  • ডোপামিন রিসেপ্টর উপর কাজ করে এমন ওষুধ নেওয়া বন্ধ করে দেওয়া।
  • বমনরোধক ওষুধ।
  • এনএমএসের পূর্ব ইতিহাস।

কিভাবে এর নির্ণয় ও চিকিৎসা করা হয়?

এনএমএস নিশ্চিত করার কোনও নির্দিষ্ট পরীক্ষা নেই। তাই, চিকিৎসক আপনাকে রক্ত পরীক্ষা, ইলেক্ট্রোলাইট পরীক্ষা এবং মূত্রপরীক্ষা সহ অনেকগুলি পরীক্ষা করানোর পরামর্শ দেবেন। আবার কখনও চিকিৎসক কোনও ইমেজিং টেস্ট অথবা ইলেক্ট্রোএনসেফালোগ্রাম (ইইজি) করানোর পরামর্শ দেন।

এনএমএসের জরুরি অবস্থা হওয়ায় অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন। প্রথমত,আপনার চিকিৎসক যে ওষুধগুলির কারণে এনএমএস হয়েছে, সেগুলি বন্ধ করার পরামর্শ দেবেন। তারপর, এর উপসর্গের চিকিৎসা করা হয়। হাইপারথারামিয়া (শরীরের উচ্চ তাপমাত্রা)-র ক্ষেত্রে, শরীর থেকে বের হয়ে যাওয়া তরল ও ইলেক্ট্রোলাইট বা খনিজের মাত্রা ফেরানোর পাশাপাশি শীতলীকরণ বৃদ্ধির জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হয়। চিকিৎসক আপনাকে এনএমএস হওয়ার কম ঝুঁকি রয়েছে এমন ওষুধ দেবেন, কিুন্তু প্রতিনিয়ত খেয়াল রাখা দরকার। সাধারণত, 7-14 দিনের মধ্যে সেরে ওঠা লক্ষ্য করা যায়।

আপনার অথবা আপনার পরিবারে কারোর কি এই রোগ আছে? দয়া করে একটা সমীক্ষা করুন এবং অন্যদের সাহায্য করুন।

और पढ़ें ...