myUpchar प्लस+ के साथ पूरेे परिवार के हेल्थ खर्च पर भारी बचत

নিউমোথোরাক্স কাকে বলে?

ফুসফুসে প্লুরা নামে বাইরের এবং ভিতরের একটি আবরণ আছে। এই দুই আবরণের মাঝের অঞ্চলকে বলে প্লুরাল ক্যাভিটি (গহ্বর) যার মধ্যে বায়ু বা তরল জমা হতে পারে, কিন্তু সাধারণত এটি চুপসে থাকে এবং এর মধ্যে সামান্য পরিমাণ প্লুরাল তরল থাকে।

নিউমোথোরাক্স ঘটে যখন দুই প্লুরা আবরণীর মাঝের এই অংশে বায়ু প্রবেশ করে। অন্তর্নিহিত ফুসফুসের রোগের ফলস্বরূপ সেকেন্ডারি (গৌণ) নিউমোথোরাক্স সৃষ্টি হয়। প্রাইমারি (প্রাথমিক/মুখ্য) নিউমোথোরাক্স ঘটে স্বতঃস্ফূর্তভাবে, কোন রোগের উপস্থিতি ছাড়াই।

কিছুক্ষেত্রে, বায়ু জমে থাকার ফলে হৃদযন্ত্র ও অন্যান্য অভ্যন্তরীণ অঙ্গ, যেমন খাদ্যনালী, তাদের নির্দিষ্ট অবস্থান থেকে সরে যেতে পারে, এবং এর ফলে রক্ত সংবহনে ব্যাঘাত ঘটতে পারে। টেনশন নিউমোথোরাক্স নামক এই সমস্যাটি প্রাণঘাতী এবং এর আপৎকালীন চিকিৎসার প্রয়োজন।

এর প্রধান লক্ষণ ও উপসর্গগুলি কি?

নিউমোথোরাক্স এর প্রকার অনুসারে এর ভিন্ন ভিন্ন উপসর্গ দেখা যায়। যদি এটি টেনশন নিউমোথোরাক্স না হয় তবে রোগি সামান্য অস্বস্তিবোধ করতে পারে এবং নাও বুঝতে পারে যে নিউমোথোরাক্স ঘটেছে। এর সবথেকে পরিচিত উপসর্গ হল হাঁপ লাগা এবং বুকে ব্যথা। সহজে বোঝা যায়না বলে সমস্যা সৃষ্টির পর চিকিৎসা করাতে রোগীর বেশ কিছুদিন লেগে যেতে পারে। এর লক্ষণগুলি হল কম অক্সিজেন মাত্রা, শ্বাসক্রিয়ার হার বৃদ্ধি, এবং নিম্ন রক্তচাপ।

টেনশন নিউমোথোরাক্স তুলনায় আরো প্রকট। গুরুতর আঘাত, রিসাসিটেশন (জীবনীশক্তির পুনরুদ্ধার), ভেন্টিলেশন (কৃত্রিম শ্বাস প্রক্রিয়া) প্রভৃতি ক্ষেত্রে এই প্রকার নিউমোথোরাক্স ঘটে থাকে। হাঁপ ধরার ফলে রোগীর অক্সিজেন মাত্রা কমে যায়। এতে প্রাথমিকভাবে ট্যাকিকার্ডিয়া (হৃদযন্ত্রের উচ্চ গতিবেগ) ও ট্যাকিপনিয়া (দ্রুত অগভীর শ্বাস) এবং পরবর্তীতে হাইপোক্সিয়া (অক্সিজেনের অভাব), সায়ানোসিস (নীল হয়ে যাওয়া) ও হাইপোভেন্টিলেশন (শ্বাসের হার কমে যাওয়া) উপসর্গ দেখতে পাওয়া যায়। শ্বাসনালীটি একপাশে সরে যায়। বিরল ক্ষেত্রে, রোগী পেট ব্যথার অভিযোগ করতে পারে।

এর প্রধান কারণগুলি কি?

ব্লেব নামক একটি বুদবুদ ফেটে যাওয়ার ফলে অথবা আঘাতের কারণে প্লুরাল গহ্বরে বায়ু প্রবেশ করতে পারে। এর ফলে ফুসফুস ভিতরের দিকে চুপসে যায়, যা শ্বাস প্রক্রিয়াকে ক্ষতিগ্রস্থ করে। টিস্যুর আঘাত যখন প্লুরাল গহ্বরে বায়ু ঢুকতে দেয় কিন্তু তাকে বেরোতে বাধা দেয় তখন টেনশন নিউমোথোরাক্স সৃষ্টি হয়। সুতরাং প্রতি প্রশ্বাসের সাথে ফুসফুস ক্রমশ আরো চুপসে যেতে থাকে।

ধূমপান, অ্যাজমা, লম্বা পাতলা গড়ন, সিওপিডি (ক্রনিক অবসট্রাক্টিভ পালমোনারি ডিজিজ), সিস্টিক ফাইব্রোসিস প্রভৃতি ক্ষেত্রে নিউমোথোরাক্স ঘটার সম্ভাবনা বেশি হয়।

কিভাবে এটি নির্ণয় করা হয় এবং এর চিকিৎসা কি?

এই সমস্যাটির নির্ণয় নিশ্চিত করা হয় বিভিন্ন পরীক্ষা, এক্স-রে বা সিটি স্ক্যানের মাধ্যমে। নিউমোথোরাক্স এর প্রকৃতি ও আয়তনের উপর এর চিকিৎসা নির্ভর করে। ছোট নিউমোথোরাক্স এর ক্ষেত্রে দ্রুত চিকিৎসা করে সেই দিনেই রোগীকে ছেড়ে দেওয়া হতে পারে এবং পরবর্তী চেকআপের প্রয়োজন হতে পারে।

আরো গুরুতর ক্ষেত্রে, অথবা টেনশন নিউমোথোরাক্স হলে, অবিলম্বে ইনজেকশনের সূঁচ প্রবেশ করে বুকে জমে থাকা বাতাস বের করে দেওয়া দরকার। এরপর বুকে একটি চেস্ট টিউব প্রবেশ করানো হয়। এটি পুনরাবির্ভাবের বিশেষ সম্ভাবনা থাকে; সুতরাং এর যথাযথ যত্ন নেওয়া প্রয়োজন।

আপনার অথবা আপনার পরিবারে কারোর কি এই রোগ আছে? দয়া করে একটা সমীক্ষা করুন এবং অন্যদের সাহায্য করুন।

और पढ़ें ...