যোনিতে সংক্রমণ - Vaginal Yeast Infection in Bengali

Dr. Ajay Mohan (AIIMS)MBBS

February 09, 2019

March 06, 2020

যোনিতে সংক্রমণ
যোনিতে সংক্রমণ

সারাংশ

মহিলাদের যৌনাঙ্গে ভ্যাজাইনাল ইস্ট সংক্রমণ খুবই সাধারণ ঘটনা এবং অধিকাংশ মহিলার জীবনের কোনও না কোনও সময় তা হয়ে থাকে। ভ্যাজাইনাল ইস্ট সংক্রমণ হলে যৌনাঙ্গে এবং যোনিদ্বারে জ্বালা করে, অস্বস্তি হয়, এবং ঘন সাদাস্রাব নিঃসরণ হয়। নারীদের যৌনাঙ্গে ইস্ট সংক্রমণ হচ্ছে এক ধরনের ফাঙ্গাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়া। এটি ভ্যাজাইনাল ক্যান্ডিডায়সিস নামেও পরিচিত। এটি কোনও যৌনসংসর্গ জনিত কারণে সংক্রমণ নয়, কিন্তু একজন মহিলা মুখ থেকে যৌনাঙ্গের সংস্পর্শে ফাঙ্গাসের সংক্রমণ ঘটাতে পারেন।.

সংক্রমণের তীব্রতার ওপর তার চিকিৎসা নির্ভর করে। সংক্রমণ যদি জটিল না হয় তাহলে হাল্কা থেকে মাঝারি মাত্রার উপসর্গ দেখা যায়, অন্যদিকে জটিল সংক্রমণ দীর্ঘস্থায়ী হয় এবং সেই কারণে তার চিকিৎসাও দীর্ঘদিন ধরে করতে হয়। মহিলারা এই সংক্রমণের জন্য সরাসরি ওষুধের দোকান থেকে ওষুধ কিনতে পছন্দ করেন। ভ্যাজাইনাল ইস্ট সংক্রমণের ঝুঁকি বৃদ্ধির অন্যতম কারণ হচ্ছে যৌন সংসর্গে সক্রিয়তা, অনিয়ন্ত্রিত ডায়বিটিস, এবং অ্যান্টিবায়োটিক্সের ব্যবহার। প্রায়শই ভ্যাজাইনাল ইস্ট সংক্রমণের মুখ্য জটিলতা হয়ে দাঁড়ায় অস্বাচ্ছন্দ্য। উপযুক্ত চিকিৎসা হলে অধিকাংশ মহিলার মধ্য থেকে এই উপসর্গগুলি দূরিভূত হয়।

যোনিতে সংক্রমণ এর উপসর্গ - Symptoms of Vaginal Yeast Infection in Bengali

যদিও ভ্যাজাইনাল ইস্ট সংক্রমণের মাত্রা অল্প হয়ে থাকে, কিছু মহিলার সংক্রমণ জটিল হয়ে দাঁড়ালে আক্রান্ত এলাকা ফুলে যেতে পারে, যৌনাঙ্গের ভিতরের ত্বক ফেটে যেতে পারে, এবং লাল বর্ণ ধারণ করতে পারে। যৌনাঙ্গের অন্যান্য সংক্রমণের মত ভ্যাজাইনাল ইস্ট সংক্রমণের উপসর্গগুলিও একই ধরনের। আপনার চিকিৎসক পরীক্ষা করে নির্ণয় করবেন, আপনার ক্যান্ডডায়াসিস হয়েছে নাকি অন্য কোনও সংক্রমণ হয়েছে। ভ্যাজাইনাল ইস্ট সংক্রমণের উপসর্গ নিম্নরূপ::

  • প্রস্রাবের সময় জ্বালা এবং ব্যাথা অনুভব। (যন্ত্রণাদায়ক প্রস্রাবের চিকিৎসা- পেনফুল ইউরিনেশন ট্রিটমেন্ট)
  • চুলকানি এবং যোনিদ্বারের (ভালভা) টিস্যুতে এবং যোনিতে অস্বস্তি।
  • শারীরিক মিলনের সময় যন্ত্রণা।
  • যৌনাঙ্গে ক্ষত বা যন্ত্রণা।
  • যোনিদ্বার (ভালভা) ফুলে যাওয়া এবং লাল বর্ণ ধারণ করা।
  • যৌনাঙ্গে র‌্যাশ।
  • ছানার মত সাদা, ঘন, দুর্গন্ধমুক্ত স্রাব।.
  • যৌনাঙ্গ থেকে জলের মত স্রাব।

যদি নিম্নলিখিত উপসর্গগুলি দেখতে পান তাহলে বুঝতে হবে আপনার জটিল ভ্যাজাইনাল ইস্ট সংক্রমণ হয়েছে:

  • বছরে চার কিংবা তার বেশি বার ইস্ট সংক্রমণ হয়ে থাকলে।
  • আপনি যদি গর্ভবতী হন।
  • আপনার অনিয়ন্ত্রিত ডায়বিটিস থাকলে।
  • ফুলে যাওয়া বা চুলকানির মত গুরুত্বপূর্ণ উপসর্গ থাকলে, যা থেকে ত্বক ফেটে যায়, ছিড়ে যায় বা ক্ষত হয়, বা টকটকে লাল বর্ণ হয়ে যায়।
  • কোনও ওষুধ বা পরিস্থিতির জন্য আপনার রোগ প্রতিরোধী ক্ষমতা কমে গেলে, যেমন HIV.
  • ক্যান্ডিডা অলবিকানস থেকে না হয়ে ক্যান্ডিডার অন্য প্রজাতির কারণে সংক্রমণ হলে।

যোনিতে সংক্রমণ এর চিকিৎসা - Treatment of Vaginal Yeast Infection in Bengali

জটিল নাকি সরল ইস্ট সংক্রমণ হয়েছে, তার ওপর ভ্যাজাইনাল ইস্ট সংক্রমণের চিকিৎসা হয়।

যদি আপনার ইস্ট সংক্রমণ বারবার না হয়, যদি আপনার ইস্ট সংক্রমণ বারবার না হয়, এবং উপসর্গ যদি হাল্কা থেকে মাঝারি মাত্রার হয়, তাহলে বুঝতে হবে এটি জটিল সংক্রমণ নয়। সরল সংক্রমণের জন্য নিম্নলিখিত চিকিৎসা পদ্ধতি অনুসরণ করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

  • অ্যান্টি-ফাঙ্গাল এক ডোজের ওষুধ
     আপনাকে একবারের জন্য মুখ দিয়ে খাওয়ার ফ্লাকোনাজোল  দেওয়া হয়, যা একটি ফাঙ্গাসরোধী ওষুধ। যদি উপসর্গ তীব্র থাকে তাহলে তিনদিন একটি করে ডোজ দিনে দু’বার খেতে হবে।
  • ভ্যাজাইনাল ক্রিম এবং সাপোজিটারি
    বহু মহিলার ক্ষেত্রে অ্যান্টি ভ্যাজাইনাল ক্রিম এবং সাপোজিটারি সরাসরি ওষুধের দোকান থেকে কিনে ব্যবহার করলে উপকার হয়, এবং প্রসূতির ক্ষেত্রে তা ব্যবহার নিরাপদ। এগুলি দিয়ে চিকিৎসা সাধারণত তিনদিন থেকে সাতদিন পর্যন্ত হয়।
  • স্বল্প মেয়াদি ভ্যাজাইনাল থেরাপি  
    ফাঙ্গাস রোধী মলম, ক্রিম, ট্যাবলেট, এবং সাপোজিটারি ব্যবহার করা যেতে পারে যে কোনও অ্যান্টি ফাঙ্গাল চিকিৎসা তিন থেকে সাতদিনের মধ্যে ইস্ট সংক্রমণ নিষ্ক্রিয় করে দেয় নিম্নলিখিত ওষুধগুলি কার্যকরী বলে দেখা গিয়েছে:
    • বুটিকোনাজোল
    • ক্লোট্রিম্যাজোল
    • মাইকোন্যাজোল
    • টেরাকোনাজোল

এই ওষুধগুলি সরাসরি ওষুধের দোকান থেকে কিনে অথবা শুধুমাত্র চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যবহার করা যায়। ওষুধগুলি লাগানোর সময় আপনি অস্বস্তি বা সামান্য জ্বালার ভাব অনুভব করবেন। ক্রিম এবং সাপোজিটর তেল সমৃদ্ধ হওয়ায় ঝিল্লি (ডায়াফ্রাম) বা রাবারের কন্ডোম দুর্বল হয়ে পড়তে পারে, সে কারণে জন্ম নিয়ন্ত্রণের জন্য অন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হতে পারে।

যদি দেখেন চিকিৎসার পরেও উপসর্গের হেরফের হচ্ছে না বা চিকিৎসার দু’মাস পরে ফের উপসর্গ ফিরে আসছে তাহলে অবশ্যই চিকিৎসকের সঙ্গে আবার দেখা করুন। (আরও পড়ুন - ভ্যাজাইনাল ইস্ট সংক্রমণ প্রতিকার-ভ্যাজাইনাল ইস্ট ইনফেকশন রেমেডিস)

আপনার যদি জটিল ইস্ট সংক্রমণ হয়ে থাকে তাহলে আপনার চিকিৎসক নিম্নলিখিত থেরাপিগুলি সুপারিশ করবেন:

  • মাল্টিডোজ অ্যান্টিফাঙ্গাল মেডিকেশন  : ফাঙ্গাস রোধী একাধিক ডোজের চিকিৎসা
    যৌনাঙ্গের চিকিৎসার পরিবর্তে দুই থেকে তিন ডোজের  ফ্লাকোনাজোল খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। গর্ভবতী মহিলাদের ক্ষেত্রে এই থেরাপি সুপারিশ করা হয় না।
  • ভ্যাজাইনাল থেরাপির দীর্ঘ চিকিৎসা
    7-14 দিনের অ্যাজোল চিকিৎসা কার্যকরীভাবে ইস্ট সংক্রমণ নিরাময় হয়।  ভ্যাজাইনাল ক্রিম, ভ্যাজাইনাল মলম, ভ্যাজাইনাল ট্যাবলেট বা সাপোজিটরি দিয়ে সাধারণত চিকিৎসা করা হয়।
  •  রক্ষণাবেক্ষণের পরিকল্পনা
     আপনার যদি প্রায়ই ইস্ট সংক্রমণ হয়ে থাকে আপনার চিকিৎসক আপনাকে ভবিষ্যতে সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে চিকিৎসার একটি রুটিন অনুসরণ করার পরামর্শ দেবেন, যাতে ইস্টের অস্বাভাবিক বৃদ্ধি না হয়। যখন চিকিৎসার সাহায্যে ইস্টের সংক্রমণ আর নেই তখন রক্ষণাবেক্ষণের একটি চিকিৎসা শুরু হয়। রক্ষণাবেক্ষণের বা মেইন্টেনেনস থেরাপির আগে টানা 14 দিন ধরে ইস্ট সংক্রমণের চিকিৎসা চলতে পারে। রক্ষণাবেক্ষণের চিকিৎসার মধ্যে আছে:
  • ফ্লাকোনাজোল
    এই ট্যাবলেটটি ছয় মাস ধরে সপ্তাহে একদিন দেওয়ার সুপারিশ করা হয়।.
  • ক্লোট্রিম্যাজোল
    মুখে ওষুধ গ্রহণের পরিবর্তে খুব কম চিকিৎসকই সপ্তাহে একদিন ক্লোট্রিম্যাজোলকে সাপোজিটরি হিসাবে সুপারিশের পক্ষপাতি।

আপনার যদি প্রায়ই ভ্যাজাইনাল ইস্ট সংক্রমণ হয় তাহলে আপনার চিকিৎসক আপনার সঙ্গীরও চিকিৎসা করার পরামর্শ দিতে পারেন। যদি যৌনাঙ্গে ইস্ট সংক্রমণের উপসর্গ দেখা যায় বা শারীরিক মিলনের সময় কন্ডোম ব্যবহারের সময় সংক্রমণ থাকে তাহলে আপনার সঙ্গীকেও পরীক্ষা করে দেখতে হবে তাঁর ইস্ট সংক্রমণ হয়েছে কিনা।

জীবনশৈলীর ব্যবস্থাপনা (লাইফস্টাইল ম্যানেজমেন্ট)

এখানে কিছু নির্দেশ দেওয়া হল যা আপনি ভ্যাজাইনাল ইস্ট সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের সময় মনে রাখতে পারেন:

  • যদি আপনার ডায়বিটিস থাকে তাহলে নিশ্চিত করুন যাতে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকে।
  • গবেষণায় জানা যাচ্ছে, জীবিত অণূজীবী-সহ (লাইভ কালচার) গন্ধহীন সাধারণ ইয়োগার্ট ইস্ট সংক্রমণ রোধ করে। তার মধ্যে থাকে ‘উত্তম’ ল্যাক্টোব্যাসিলাস ব্যাকটিরিয়া। ইস্ট চিনি ভালবাসে কাজেই শর্করামুক্ত ব্র‌্যান্ড উপকারী হয়। এছাড়া মুখে খাওয়ার প্রোবায়টিক্স উপকারী হয়ে থাকে।
  • ইস্ট সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে সবচেয়ে কার্যকরী হচ্ছে আপনার একান্ত নিজস্ব স্বাস্থ্যবিধি এবং খাদ্যতালিকায় পরিবর্তন করা।
  • প্রায়ই ট্যাম্পন এবং স্যানিটারি প্যাড পরিবর্তন করতে ভুলবেন না।
  • বাবল স্নান, রঙীন টয়লেট পেপার, বডি ওয়াশ, এবং নারীদের জন্য সুগন্ধী পণ্য বাবহার করা থেকে বিরত থাকুন।


তথ্যসূত্র

  1. Am Fam Physician. 2004 May 1;69(9):2189-2190. [Internet] American Academy of Family Physicians; Vaginal Yeast Infections.
  2. Office on Women's Health [Internet] U.S. Department of Health and Human Services; Vaginal yeast infections.
  3. HealthLink BC [Internet] British Columbia; Vaginal Yeast Infection
  4. MedlinePlus Medical Encyclopedia: US National Library of Medicine; Vaginal yeast infection
  5. HealthLink BC [Internet] British Columbia; Vaginal Yeast Infections
  6. Center for Disease Control and Prevention [internet], Atlanta (GA): US Department of Health and Human Services; Candidiasis
  7. American College of Obstetricians and Gynecologists [Internet] Washington, DC; Vaginitis
  8. Center for Disease Control and Prevention [internet], Atlanta (GA): US Department of Health and Human Services; Vulvovaginal Candidiasis
  9. Sima Rasti, Mohammad Ali Asadi, Afsaneh Taghriri, Mitra Behrashi, Gholamabbas Mousavie. Vaginal Candidiasis Complications on Pregnant Women. Jundishapur J Microbiol. 2014 Feb; 7(2): e10078. PMID: 25147665

যোনিতে সংক্রমণ ৰ ডক্তৰ

Dr. Arun R Dr. Arun R Infectious Disease
5 वर्षों का अनुभव
Dr. Neha Gupta Dr. Neha Gupta Infectious Disease
16 वर्षों का अनुभव
Dr. Lalit Shishara Dr. Lalit Shishara Infectious Disease
8 वर्षों का अनुभव
Dr. Alok Mishra Dr. Alok Mishra Infectious Disease
5 वर्षों का अनुभव
অনেক সময় অডিও র জন্য মুহূর্তের বিলম্ভ হতে পারে

যোনিতে সংক্রমণ জন্য ঔষধ

যোনিতে সংক্রমণ के लिए बहुत दवाइयां उपलब्ध हैं। नीचे यह सारी दवाइयां दी गयी हैं। लेकिन ध्यान रहे कि डॉक्टर से सलाह किये बिना आप कृपया कोई भी दवाई न लें। बिना डॉक्टर की सलाह से दवाई लेने से आपकी सेहत को गंभीर नुक्सान हो सकता है।