myUpchar प्लस+ के साथ पूरेे परिवार के हेल्थ खर्च पर भारी बचत

প্রাইমারি বিলিয়ারি কোলানজাইটিস কি?

প্রাইমারি বিলিয়ারি কোলানজাইটিস একধরনের দীর্ঘস্থায়ী লিভারের বা যকৃতের রোগ যা সময়ের সাথে সাথে আরও খারাপ হয়। এটার অগ্রগতি শেষ পর্যায়ে লিভার বিকল করে। এটা সবচেয়ে সাধারণভাবে প্রাইমারি বিলিয়ারি সিরোসিস নামে পরিচিত, এবং অটোইমিউন রোগ বলে মনে করা হয়। এটি বেশিরভাগই মহিলাদের আক্রান্ত করে, এবং সাধারণত তাদের জীবনের 40-60 বছর বয়সের মধ্যে হতে দেখা যায়।

এর প্রধান লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি কি কি?

এই রোগ পুরোপুরিভাবেই উপসর্গহীন। প্রায় এক চতুর্থাংশ রোগীর রক্ত পরীক্ষার মধ্যমে রোগ নির্ণয় করা হয়। রোগীরা তলপেটের অস্বস্তি এবং ক্লান্তির একটি ইতিহাসের সাথে উপস্থিত হতে পারেন। ক্লান্তি এতোটাই প্রখর হয় যে, যার ফলে মানসিক অবসাদ এবং অবসেসিভ-কম্পালসিভ বিহেভিয়ার দেখা যায়। পিত্ত সঞ্চয়ের ফলে জন্ডিস সাধারণভাবেই হয়।

ক্লিনিক্যাল পরীক্ষাগুলিতে নিচে আলোচিত লক্ষণগুলি দেখা যেতে পারে:

  • বর্ধিত লিভার এবং প্লীহা।
  • গর্ভাবস্থায় জান্থেলাস্মার মতো নাকের উপর, চোখের তলায় এবং গালের উপরের চামড়া কালো হয়ে যাওয়া।
  • জন্ডিস- চোখের সাদা অংশ হলুদ দেখায় এবং চামড়ার রঙ হলুদ হয়ে যায়।

পরবর্তী পর্যায়ে, এই রোগ বৃদ্ধি পেয়ে লিভার সিরোসিস হয় এবং লিভার কোষের (হেপাটোসাইটিস) ক্ষতিসাধন করে। এই পর্যায়ে পরিলক্ষিত উপসর্গগুলির মধ্যে রয়েছে কম খিদে পাওয়া, নাক দিয়ে রক্ত পড়া, জন্ডিস, চামড়ার তলায় মাকড়সার মত শিরার আবির্ভাব, ওজন কমে যাওয়া, অ্যানোরেক্সিয়া বা ক্ষুধাহীনতা, চুলকানি, এবং দুর্বলতা

এর প্রধান কারণগুলি কি কি?

এর সঠিক কারণ এখনো জানা যায়নি; তবে, এই রোগটিকে অটোইমিউন বলে মনে করা হয়। এই রোগে ছোট পিত্তনালীগুলি ক্ষতিগ্রস্ত হয় যা কখনই পুরোপুরি ঠিক হয় না। এইভাবে, লিভার কোষ থেকে পিত্তথলির ভিতর পিত্ত প্রবাহিত হতে দীর্ঘস্থায়ী বাধা পায়। পিত্তনালী সঠিকভাবে কাজ না করতে পারায় পিত্ত জমা হয়ে প্রদাহ সৃষ্টি করে এবং কোষের মৃত্যু ঘটায়। এটি পরবর্তী কালে লিভার কোষকে ধ্বংস করতে পারে। একটি সম্ভাব্য জিনগত উৎস ছাড়াও, এটি সেই সমস্ত রোগীদের মধ্যে দেখা গেছে যারা ইউরিনারি ট্র‍্যাক্ট ইনফেকশনে ভুগছেন।

এটি কিভাবে নির্ণয় এবং চিকিৎসা করা হয়?

সম্পূর্ণ তথ্য নেওয়া, পরীক্ষা করা এবং লিভারের কার্যকরীতা পরীক্ষার মাধ্যমে রোগ নির্ণয় করা হয়। তলপেটের এক্স-রে এবং আল্ট্রাসাউন্ড এবং লিভারের বায়োপ্সিও রোগ নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজন হয়। এই একই ক্ষেত্রে তলপেটের সিটি স্ক্যান করার প্রয়োজন হতে পারে।

চিকিৎসার প্রথম লক্ষ্য হল রোগের বিস্তারের হার কমানো এবং রোগীকে উপসর্গের কষ্টের থেকে স্বস্তি প্রদান করা। অবশেষে, লিভার প্রতিস্থাপন প্রয়োজনীয়। গুরুতর ক্ষেত্রে, লিভার প্রতিস্থাপনই একমাত্র উপায় হয়ে দাঁড়ায়। লিভার প্রতিস্থাপন খুবই সাধারণ পদ্ধতি, লিভার হল দ্বিতীয় সর্বাধিক সাধারণভাবে হওয়া প্রতিস্থাপিত অঙ্গ। অপারেশনের পরে ইমিউনোসাপ্রেস্যান্ট এবং কর্টিকোস্টেরয়েডের মাধ্যমে যত্ন নেওয়া হয়। সংক্রমণের ঝুঁকি কমানো প্রয়োজন, এবং সেই কারণে রোগীকে রোগ-জীবাণুমুক্ত অবস্থায়  রাখতে হবে।

আপনার অথবা আপনার পরিবারে কারোর কি এই রোগ আছে? দয়া করে একটা সমীক্ষা করুন এবং অন্যদের সাহায্য করুন।

और पढ़ें ...