myUpchar प्लस+ के साथ पूरेे परिवार के हेल्थ खर्च पर भारी बचत

ভারতীয় রান্নাঘরে কিছু জিনিস আছে যার কোনও বিকল্প হয় না। কারণ, সেগুলি শুধু কিছু অসাধারণ আঞ্চলিক স্বাদের জন্য ব্যবহার হয় না, কিন্তু তাদের উপকারের পরিধি অনেক বড় এবং রান্নাঘরের সীমার মধ্যে তাকে আটকে রাখা সহজ নয়। সেরকমই একটি উদাহরণ হল ‘সরিষার তেল’। এর একটি ঝাঁঝাঁলো গন্ধ আছে এবং সে গন্ধের সঙ্গে সহজেই অভ্যস্ত হয়ে যাওয়া সম্ভব। একবার ওই গন্ধের সঙ্গে অভ্যস্ত হয়ে গেলে, আপনি এর আসল স্বাদ বুঝতে পারবেন। তার নেশায় পড়ে যাবেন।

পূর্ব এবং উত্তর ভারতে, এমন বাড়ি খুঁজে পাওয়া যাবে না যেখানে সরিষার তেলের ব্যবহার নেই। মনে করা হয় এর এমন ভেষজ গুণ আছে যা দিয়ে ছত্রাকের (ফাঙ্গাল) সংক্রমণের চিকিৎসা করা হয়, তা সর্দির প্রতিকারে কাজে লাগানো হয়, চুলের বৃদ্ধি ঘটাতে, শরীরের প্রতিরোধী ক্ষমতা ও ত্বকের পুষ্টি বাড়াতে, হাড় মজবুত করতে, মুখের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটাতে এবং আরও বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা হয়। একটি অন্তহীন তালিকা বলতে যা বলা হয়।

সরিষার বীজকে (কালো, বাদামি বা সাদা) ঠান্ডা অবস্থায় পিষে তেল বার করা হয়, তার রঙ লালচে বাদামি বা হলুদাভ বাদামি (অ্যাম্বার) , সাধারণত উত্তর এবং পূর্ব ভারতে, বাংলাদেশ, পাকিস্তান, এবং নেপালে ব্যবহৃত হয়। তবে, এখন এটি ক্রমেই খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠছে, জনপ্রিয়তা এতটাই বেড়েছে যে কিছু নামীদামি রেস্তোরাঁর শেফ তাঁদের নিজেদের পদে এই তেলের ব্যবহার শুরু করেছেন। রান্নার কাজে ব্যবহার ছাড়া, সরিষার তেল স্যালাডে ব্যবহার করা হয়, শিশুদের মাসাজ অয়েল, চুলের তেল, মুখ এবং শরীরের মাখবার তেল হিসাবেও এর ব্যবহার চলছে।

সরিষার তেলের কিছু প্রাথমিক তথ্য:

  • বৈজ্ঞানিক নাম:  ব্রাসিকা জানসি
  • পরিবার: ব্রাসিসিয়াই
  • সাধারণ নাম: সরসোঁ কা তেল
  • সংস্কৃত নাম :সর্ষপতৈল
  • ব্যবহৃত অংশ: সরিষার বীজকে ঠান্ডা অবস্থায় পিষে তেল বার করা হয়।
  • আদিতে উদ্ভূত এবং ভৌগৌলিক বণ্টন: পূর্ব ভারতে, উত্তর ভারতে, বাংলাদেশ, এবং নেপালে ব্যবহৃত হয় রান্নার কাজে সরিষার তেল বাবহৃত হয়।
  • গুরুত্বপূর্ণ তথ্য: রান্নার কাজে ছাড়া বিভিন্ন উৎসবে এবং অনুষ্ঠানে সরিষার তেল ব্যবহার করা হয়, বলা ভাল যে সরিষার তেলের সঙ্গে ভারতীয়রা তাদের বৈচিত্রময় সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্যের যোগসূত্র খুঁজে পায়। পঞ্জাবে বিয়ের সময় স্ত্রী আচার পালনের সময় পাত্রের মা নববধূর শুভাগমন উপলক্ষে দরজার দু’পাশে সরিষার তেল ঢেলে দেন।
    আনন্দের উৎসব যেমন দীপাবলীর সময় মাটির প্রদীপ বা ‘দিয়া’ জ্বালানো হয় এই তেল দিয়ে।   
    ‘মাইয়া’ বা গায়ে-হলুদ জাতীয় প্রাকবিবাহ অনুষ্ঠানে পাত্র-পাত্রীর শরীরে যে লেই-এর প্রলেপ দেওয়া হয় তার অন্যতম উপকরণ হল সরিষার তেল।     
  1. সরিষার তেলের পুষ্টি - Mustard oil nutrition facts in Bengali
  2. সরিষার তেলের স্বাস্থ্যকর গুণ - Mustard oil health benefits in Bengali
  3. সরিষার তেলের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া - Mustard oil side effects in Bengali
  4. মনে রাখতে হবে - Takeaway in Bengali

সরিষার তেলের প্রায় 60% মনোআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড (MUFA) ।  MUFA শরীরের ভাল কোলেস্টেরল (HDL) বাড়াতে সাহায্য করে। সরিষার তেলের প্রায় 21%  পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড (PUFA) । শরীরে রক্তচাপ এবং হৃদস্পন্দনের সঙ্গে এর একটি ইতিবাচক সম্পর্ক আছে। এর মধ্যে সামান্য শতাংশ স্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড (SFA) । কিন্তু SFA কে অপেক্ষাকৃত কম স্বাস্থ্যকর বলে ধরা হয় কারণ এটি শরীরে বাজে কোলেস্টেরল (LDL) বাড়ানোর সম্ভাবনা তৈরি করে। USDA পুষ্টি তালিকা অনুযায়ী এক টেবিল চামচ সরিষার তেলে নিম্নলিখিত পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে:

পুষ্টিকর উপাদান মূল্যমান, 1 tbsp
শক্তি 124 g
স্নেহ পদার্থ 14 g
চর্বি /ফ্যাটি অ্যাসিড মূল্যমান, 1 tbsp
স্যাচুরেটেড 1.621 g
মনোআনস্যাচুরেটেড 8.286 g
পলিআনস্যাচুরেটেড 2.972 g
  • ত্বক এবং চুলের জন্য:  আপনার ত্বক এবং চোখের স্বাস্থ্যের জন্য সরিষার তেলের প্রচুর উপকার আছে এবং তা বহু রোগ প্রতিরোধ করে। ওমেগা 3 ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ হওয়ায় ত্বক ফাটা রোধ করে। এর অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল প্রক্রিয়ার জন্য দাদ (রিংওয়ার্ম) এবং ইস্টের মতো ফাঙ্গাল সংক্রমণের ঝুঁকি কমায়।
  • ওজন কমাতে:  খাদ্যতালিকা সরিষার তেল সমৃদ্ধ হলে দেখা গেছে তা ওজন কমাতে সাহায্য করে কারণ অ্যাডিপোজ টিস্যুতে যে চর্বি সঞ্চিত হয় তা হতে পারে না।
  • মুখের স্বাস্থ্যের জন্য: সরিষার তেল প্রদাহ কমায় এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল, কাজেই জিঞ্জিভাইটিস এবং পেরিওডন্টিটিস জাতীয় মাড়ির সমস্যা কমায়।
  • হার্টের জন্য: যাঁদের হৃদরোগের সমস্যা আছে সরিষার তেল তাঁদের পক্ষে নিরাপদ, কারণ এর মধ্যে ফ্যাটি অ্যাসিডের ভারসাম্য আছে। এটি কোলেস্টেরলের হারও কমায়।
  • ক্যান্সারের বিরুদ্ধে: শরীরে ক্যান্সারের কারণে যে সমস্ত কোশের বৃদ্ধি চিরাচরিত চিকিৎসায় সাড়া দেয় না, সেগুলির বৃদ্ধিও সরিষার তেল প্রতিহত করে, কারণ তার মধ্যে সালফোরাফেন রয়েছে। তবে এ বিষয়ে নিশ্চিত হওয়ার জন্য আরও গবেষণার প্রয়োজন আছে।
  • অন্যান্য উপকার: প্রদাহ-বিরোধী হওয়ায় সরিষার তেল পেশির ব্যাথা এবং আর্থারাইটিস কমায়। মূত্রনালীর সংক্রমণ এবং টাইফয়েড প্রতিরোধে এটি সাহায্য করে।
  1. সরিষার তেলের ক্যান্সার বিরোধী গুণাবলী - Mustard oil anticancer properties in Bengali
  2. হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য সরিষার তেল - Mustard oil for heart health in Bengali
  3. অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল হিসাবে সরিষার তেল - Mustard oil as an anti-microbial in Bengali
  4. ত্বকের উপকারে সরিষার তেল - Mustard oil benefits for skin in Bengali
  5. চুলের উপকারে সরিষার তেল - Mustard oil benefits for hair in Bengali
  6. সরিষার তেলের প্রদাহ বিরোধী উপাদান - Mustard oil has anti-inflammatory properties in Bengali

সরিষার তেলের ক্যান্সার বিরোধী গুণাবলী - Mustard oil anticancer properties in Bengali

ফ্রি র‌্যাডিক্যাল হল অস্থিতিশীল অণু যা শরীরের স্বাস্থ্যকর কোশগুলির ক্ষতি করে। অন্যদিকে, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ফ্রি র‌্যাডিক্যালজনিত ক্ষতি প্রতিরোধ করে। ফুড সায়েন্স অ্যান্ড টেকনলজিতে প্রকাশিত এক প্রবন্ধে বলা হয়েছে, সরিষার তেল ওমেগা 3 ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ এবং তার মধ্যে ক্যান্সার বিরোধী গুণাবলী রয়েছে।

সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, যে সমস্ত চরম অপকারী ক্যান্সার কোশ চিরাচরিত ক্যান্সার চিকিৎসায় সাড়া দেয় না, সেগুলিকে সরিষার তেলে উপস্থিত সালফোরাফেন যৌগ প্রভাবিত করতে পারে।

অবশ্য এই তেলের ক্যান্সার বিরোধী প্রক্রিয়ার বিষয়ে বিশদে জানার জন্য আরও গবেষণার প্রয়োজন আছে।

হার্টের স্বাস্থ্যের জন্য সরিষার তেল - Mustard oil for heart health in Bengali

অত্যরিক্ত মাত্রায় কোলেস্টেরলের সঙ্গে হৃদরোগের ঝুঁকি খুব বেশি বলে ধরা হয়। যখন রক্তে অতিরিক্ত মাত্রায় কোলেস্টেরল সঞ্চিত হয় তখন তা ধমনীগুলি আটকে দেয়, ফলত রক্তচাপের বৃদ্ধি হয়। অন্যতম প্রধান ধমনীগুলিতে প্লাক জমলে হার্টের রক্ত সঞ্চালন কমে এবং হার্টের বহুবিধ সমস্যা দেখা দেয়। গবেষণায় দেখা গিয়েছে, সরিষার তেলের মধ্যে স্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড (SFA) এবং আনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিডের ভারসাম্য বজায় থাকে। কিন্তু এর মধ্যে অন্যান্য খাওয়ার তেলের চেয়ে কম মাত্রায় SFA থাকায় হার্টের অসুখে আক্রান্ত রোগীদের পক্ষে এটি স্বাস্থ্যকর। এর কারণ, শরীরের মধ্যে উপস্থিত SFA খারাপ কোলেস্টেরলের (LDL) হার বৃদ্ধি করে। এছাড়া, সরিষার তেল হচ্ছে ওলেইক অ্যাসিড সমৃদ্ধ এবং এর মধ্যে লিনোলেনিক এবং লিনোলেইক অ্যাসিডের ভারসাম্য আছে, যেগুলি হার্টের পক্ষে ভাল। একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, অপরিশ্রুত সরিষার তেল চড়া তাপমাত্রায় রান্নার সময় স্থিতিশীল থাকে এবং নিয়মিত সরিষার তেল গ্রহণ করলে 71% হৃদরোগের আশঙ্কা কমে।

অন্য একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, অপরিশ্রুত সরিষার তেল অতি চড়া তাপমাত্রায় রান্নার সময় স্থিতিশীল থাকে।

 (আরও পড়ুন: হাই কোলেস্টেরল চিকিৎসা)

অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল হিসাবে সরিষার তেল - Mustard oil as an anti-microbial in Bengali

জীবাণু বা মাইক্রোব হচ্ছে অতি ক্ষুদ্র জীবিত প্রাণী যা খোলা চোখে দেখা যায় না। কিছু জীবাণু আছে যাদের উপস্থিতি শরীরের পক্ষে জরুরি, আবার কিছু জীবাণু আছে যারা বিভিন্ন রোগ সৃষ্টি করে।

গবেষণায় প্রমাণিত যে জরুরি সরিষার তেল অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল হিসাবে কাজ করে। এটি ব্যাকটিরিয়ার ঝিল্লির কোশের (সেল মেমব্রেন) ক্ষতি করে এবং দেখা গিয়েছে সাধারণ সংক্রামক ব্যাকটিরিয়া যেমন এসেরিকিয়া কোলি যা থেকে মূত্রনালীর সংক্রমণ এবং ডায়ারিয়া হয় এবং টাইফয়েডের জন্য দায়ি সালমোনেলা টাইফি-র বিরুদ্ধে এটির সম্ভাব্য অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল প্রক্রিয়া কাজ করে।

ত্বকের উপকারে সরিষার তেল - Mustard oil benefits for skin in Bengali

আয়ুর্বেদ শাস্ত্রের মতে, বহু প্রকারের সরিষার তেলের মধ্যে ত্বকের অজস্র উপকারিতা আছে। তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের ত্বকের রোগ নিরাময় এবং ত্বকের সুরক্ষার  উপাদান। ওমেগা 3 ফ্যাট সমৃদ্ধ বলে ত্বকের ফেটে যাওয়া রোধ করে। শীত কালে শরীরে সরিষার তেল লাগালে তা ত্বক শুষ্ক হতে দেয় না।

রাজিকা প্রকারের সরিষার ত্বকের রোগ প্রতিরোধ করে বলে জানা যায়। আর একটি গবেষণায় পাওয়া গিয়েছে, সরিষার জরুরি তেলের মধ্যে অ্যালাইল আইসোথায়োসায়নেটের উপস্থিতির কারণে ফাঙ্গাস বিরোধী উপাদান রয়েছে। দাদ বা রিংওয়ার্ম এবং ইস্টের মতো ফাঙ্গাল সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে এটি সাহায্য করে।

চুলের উপকারে সরিষার তেল - Mustard oil benefits for hair in Bengali

ডার্মাফাইট হচ্ছে এমন ধরনের ছত্রাকের জীবাণু যা ত্বক এবং চুলে সংক্রমণ ঘটায়। একটি গবেষণায় জানা গিয়েছে, কিছু ডার্মাফাইট যেমন মাইক্রোসপোরাম ক্যানিস  এবং ট্রিকোফাইটোন রাবরাম-এর বিরুদ্ধে সরিষার তেলের একটি বিষাক্ত প্রতিক্রিয়া আছে। আয়ুর্বেদ মতে, রাজিকা প্রকারের সরিষার তেল চুলের টনিক হিসাবে ব্যবহার করা যায়।

সরিষার তেল, নারকেল তেল এবং আমলা তেলের ওপর একটি প্রিক্লিনিক্যাল সমীক্ষায় জানা গিয়েছে, কেশ বৃদ্ধির জন্য সরিষার তেল সবচেয়ে বেশি কার্যকরী। তেলের মধ্যে ফ্যাটি অ্যাসিড এবং ভিটামিন ই-র উপস্থিতির জন্য এই সুফল পাওয়া যায়।

সরিষার তেলের প্রদাহ বিরোধী উপাদান - Mustard oil has anti-inflammatory properties in Bengali

বিভিন্ন ক্ষতিকর পদার্থ এবং সংক্রমণের বিরুদ্ধে  শরীর যে লড়াই করে তার ইঙ্গিত মেলে প্রদাহ থেকে। লাল হয়ে যাওয়া, ফুলে যাওয়া, যন্ত্রণা এবং অসাড় হয়ে যাওয়া হচ্ছে তার ইঙ্গিত। যখন কোনও প্রদাহ দীর্ঘস্থায়ী হয়ে যায় তখন তা থেকে অ্যাজমা, হৃদরোগ বা এমনকি ক্যান্সার হতে পারে। সমীক্ষা থেকে জানা যাচ্ছে, সরিষার তেলে ক্যান্সার প্রতিরোধী উপাদান আছে যা প্রদাহ প্রতিরোধ করে। ম্যাগনেসিয়াম এবং সেলেনিয়ামের উপস্থিতির কারণে মূলত তা সম্ভব হয়। পেশির টান, এবং আর্থারাইটিস-এর (সন্ধিস্থলে প্রদাহ) কারণে যে যন্ত্রণা হয় তা কমাতে সাহায্য করে। 

এছাড়া, সরিষার তেল PUFA সমৃদ্ধ যা একটি গুরু‌ত্বপূর্ণ ফ্যাটি অ্যাসিড। প্রদাহ কমিয়ে এবং রোগের বিরুদ্ধে লড়াই করে শরীরের প্রতিরোধ শক্তি সুরক্ষিত করতে এটি বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

 (আরও পড়ুন: ইনফ্ল্যামেটরি ডিজিজ টাইপ)

  • একটি সমীক্ষায় প্রকাশিত যে রাজিকা প্রকারে সরিষার তেল ব্যবহার করলে বন্ধ্যাত্ব হতে পারে বা প্রস্রাবের হার কমতে পারে। এই তেল চোখে ব্যবহার করলে তার ফল খারাপ হতে পারে। আয়ুর্বেদ শাস্ত্রের মতে, সরিষার তেল পিত্ত বৃদ্ধি করে। শরীরের অতিরিক্ত পিত্ত বৃদ্ধি হলে একটা জ্বালার অনুভূতি, জ্বর এবং প্রদাহ হয়।
  • কোনও কোনও ব্যক্তি সরিষার তেল ব্যবহার করলে অ্যালার্জি হয়। একটি ঘটনার কথা জানা গিয়েছে যেখানে এক ব্যক্তি সরিষার তেল দিয়ে ম্যাসাজ করানোর পর তাঁর ত্বকের ক্ষতি হয়েছিল। কাজেই সরিষার তেল দিয়ে নিয়মিত ম্যাসাজ করানোর আগে ত্বকের ওপর ব্যবহার করে দেখে নিতে হবে সরিষার তেলে তাঁর ত্বকে অ্যালার্জির উপসর্গ দেখা দিচ্ছে কিনা।

সরিষার তেলের বিভিন্ন স্বাস্থ্যোপকারিতা আছে, মূলত তার কারণ এটি মনোআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড এবং পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ তেল। তেল হিসাবে হার্টের পক্ষে এটি উপযুক্ত বাছাই। নিজ্ঞানসম্মত কিছু সমীক্ষায় বলা হয়ে থাকে সরিষার তেলের উপকারিতার মধ্যে আছে এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান যা ক্যান্সারের কোশ বৃদ্ধি ব্যাহত করে এবং এর অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল গুণ। সরিষার জরুরি তেল চুল এবং ত্বকে ব্যবহার করা যেতে পারে এবং সরিষার তেলে প্রদাহ-বিরোধী উপাদান আছে।

और पढ़ें ...

References

  1. United States Department of Agriculture Agricultural Research Service. Basic Report: 04583, Oil, mustard. National Nutrient Database for Standard Reference Legacy Release [Internet]
  2. Chugh B, Dhawan K. Storage studies on mustard oil blends. J Food Sci Technol. 2014 Apr;51(4):762-7. PMID: 24741172
  3. Herr I, Lozanovski V, Houben P, Schemmer P, Büchler MW. Sulforaphane and related mustard oils in focus of cancer prevention and therapy. Wien Med Wochenschr. 2013 Feb;163(3-4):80-8. PMID: 23224634
  4. S.C. Manchanda. Selecting healthy edible oil in the Indian context. Indian Heart J. 2016 Jul-Aug; 68(4): 447–449. PMID: 27543465
  5. Suhr KI, Nielsen PV. Antifungal activity of essential oils evaluated by two different application techniques against rye bread spoilage fungi. J Appl Microbiol. 2003;94(4):665-74. PMID: 12631202
  6. Monika Nagpal, Shaveta Sood. Role of curcumin in systemic and oral health: An overview. J Nat Sci Biol Med. 2013 Jan-Jun; 4(1): 3–7. PMID: 23633828
  7. Zawar V. Pityriasis rosea-like eruptions due to mustard oil application. Indian J Dermatol Venereol Leprol. 2005 Jul-Aug;71(4):282-4. PMID: 16394442