মেথি কি?

মেথি একটি ঔষধি যা রন্ধনের একটি উপাদান। এর উৎস ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চল, দক্ষিণ ইউরোপ এবং পশ্চিম এশিয়ার কিছু অংশ। মেথির বীজ এবং পাতার সুস্বাদ এবং সুগন্ধের জন্য রন্ধনে এর ব্যবহার বহুল। চিকিৎসায়, বিশেষত আয়ুর্বেদ চিকিৎসায়, এর অসাধারণ গুণের জন্য মেথি ব্যবহৃত হয়। মেথির চাষের জন্য পর্যাপ্ত সূর্যালোক এবং উর্বর জমির প্রয়োজন হয়। ভারতবর্ষ এই ঔষধির অন্যতম সর্বাধিক উৎপাদক। এখানে, মেথির পাতা সবজি হিসাবে রান্না করা হয় এবং এর বীজ রান্নার মশলায় এবং ওষুধ তৈরিতে ব্যবহার করা হয়। কিছু ওষুধ তৈরিতে মেথিকে এ্যাডিটিভ এজেন্ট হিসাবে ব্যবহার করা হয় যাতে ওষুধের অন্যান্য উপাদানগুলির স্বাদ এবং গন্ধ চাপা পড়ে যায় এবং ওষুধটি সুস্বাদু এবং সুগন্ধি হয়ে ওঠে। এ ছাড়াও, মেথি সাধারণত গৃহ-চিকিৎসায় বিভিন্ন রোগের উপশমে ব্যবহার করা হয়। ফলে মেথি ভারতীয় গৃহস্থালির একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে উঠেছে। পাচনতন্ত্রের উপরে মেথির ভেষজ প্রভাবের কারণে এই ধরণের গৃহ-চিকিৎসায় সাধারণত হজম ও পেটের গোলমালে মেথির ব্যবহার হয়। এই নিবন্ধের পরের দিকে এই বিষয়ে আলোচনা করা হবে।

মেথির ব্যবহার মানব সভ্যতার মতই প্রাচীন। প্রাচীন গ্রীস দেশে মৃতদেহ সুবাসিত করার জন্য মেথির ব্যবহার হত; প্রাচীন সমাধিস্থলগুলিতে এই ঔষধির অংশ বিশেষ পাওয়া গিয়েছে। এর কড়া স্বাদ এবং গন্ধের কারণে একে কফি'র ক্যাফিন-বিহীন বিকল্প হিসাবে গৃহ-প্রস্তুত পানিয় এবং মিশ্রণে ব্যবহৃত হয়। এই চমৎকার ঔষধির কিছু বুনিয়াদি তথ্য এবং এর পুষ্টিগুণ সম্পর্কে কিছু জানা যাক।

মেথি সম্পর্কে কিছু বুনিয়াদি তথ্য:

  • বৈজ্ঞানিক নাম: ট্রিগোনেল্লা ফিনিয়াম-গ্রেকাম
  • পরিবার: ফ্যাবিয়েসি (মটরের পরিবার)
  • সাধারণ নাম: মেথি, মেথিদানা, গ্রিক হে, গ্রিক ক্লোভার
  • সংস্কৃত নাম: বহুপর্ণি
  • যে অংশ ব্যবহার করে হয়: বীজ এবং পাতা
  • কর্মশক্তিসম্বন্ধীয় বিজ্ঞান: গরম
  1. মেথির পুষ্টি সংক্রান্ত তথ্য - Fenugreek Nutrition Facts in Bengali
  2. মেথির উপকার - Benefits of Fenugreek in Bengali
  3. মেথির ব্যাবহার - How to use fenugreek seeds (methi dana) in Bengali
  4. মেথির মাত্রা - Fenugreek Dosage in Bengali
  5. মধুর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া - Side effects of fenugreek in Bengali

মেথি একটি অতি পুষ্টিকর ঔষধি। খাদ্যতালিকাগত তন্তু (ফাইবার) পরিমাণ খুব বেশি থাকার ফলে মেথি দেহের ওজন হ্রাসে সহায়তা করে। মেথি গ্যাল্যাক্টোমান্নান সমৃদ্ধ, যা একটি হেটেরো-পলিস্যাকারাইড, যা এই প্রক্রিয়াকে সাহায্য করে। মেথির অন্যান্য পুষ্টির মাত্রা নিচের সারণিতে দেওয়া হল:

উপাদানগুলি মান প্রতি 100 গ্রাম
জল 8.84 গ্রাম
প্রোটিন 23.00 গ্রাম
মোট লিপিড 6.41 গ্রাম
কারর্বোহাইড্রেট 58.35 গ্রাম
তন্তু 24.6 গ্রাম
লৌহ 33.53 গ্রাম

মোট শক্তি 323 কিলো ক্যালোরি প্রতি 100  গ্রাম

বিভিন্ন রোগ ও ব্যাধির চিকিৎসার জন্য এবং ভাল স্বাস্থ্য এবং সঠিক শারীরিক কার্যক্ষমতা বজায় রাখার জন্য মেথির বীজ প্রাচীনকাল থেকে ব্যবহার করা হচ্ছে। মেথির বীজ, চূর্ণ এবং সম্পূরকগুলির উপকার এই অধ্যায়ে আলোচনা করা হল:

  • রক্তের শর্করার মাত্রা হ্রাস করে: নিয়মিত ভাবে 5 থেকে 50 গ্রাম মেথির গুড়ো সেবন করলে কার্বোহাইড্রেটের বিপাক ক্রিয়া উন্নত করে এবং ডায়াবেটিস মেলিটাস (মধুমেহ) রোগীদের রক্তের শর্করার মাত্রা হ্রাস করে।
  • দেহের ওজন হ্রাসে সহায়তা করে: মেথির জলে গ্যালাক্টোমান্নান থাকায় ক্ষুধা হ্রাস পায়, ফলে ওজন কমে। শুধু তাই নয়, স্থূলতার আরেকটি সমস্যা, রক্ত চাপ মাত্রাও নিয়ন্ত্রণ করে।
  • মহিলাদের ক্ষেত্রে উপকারিতা: সুপারিশ করা হয়েছে যে দৈনিক 1800-2700 মিলিগ্রাম মেথি প্রথম তিন দিনে এবং প্রায় 900 মিলিগ্রাম মাসিক চক্রের পরের দিনগুলিতে খেলে ব্যথার উপশমে সহায়তা করে এবং এর কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। এতে মাসিক চক্রও নিয়মিত হয়।
  • ব্যায়ামের কার্যকারিতা উন্নত করে: সম্পূরক হিসাবে মেথি খেলে পেশির শক্তি এবং সহনশীলতা বৃদ্ধি পায় এবং দেহের চর্বি হ্রাস হয়। এতে ব্যায়ামের ফল আরও ভাল হয়।
  • পাকস্থলীর পক্ষে উপকারী: পাকস্থলীর নানাবিধ সমস্যা যেমন পেট ফাঁপা, বদ হজম, ইত্যাদির উপশম হয়। তন্তু সমৃদ্ধ হওয়ায় মেথি কোষ্ঠকাঠিন্য থেকেও মুক্তি দেয়। 
  • সন্ধি-বাতের উপসর্গ থেকে আরাম দেয়: মেথির বীজে পলি-আনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি এসিড থাকে যার একটি প্রদাহ-বিরোধী গুণ আছে। বিভিন্ন পরীক্ষাতে দেখা গিয়েছে যে মেথির গুড়ো খেলে সন্ধিবাতের ব্যথা এবং ফোলা কমে যায়।

মধুমেহে মেথির চা - Fenugreek tea for diabetes in Bengali

দেহ-কোষের ইনসুলিনের ক্রিয়ার প্রতিরোধ করার ক্ষমতাই টাইপ 2 মধুমেহের কারণ। এর ফলে দেহে গ্লুকোজের পরিমাণ অত্যধিক ভাবে বৃদ্ধি পায়। মেথির চা নিয়ে একটি ফরাসি গবেষণা প্রমাণ করেছে যে মেথির বীজ দেহের কার্বোহাইড্রেট বিপাক প্রক্রিয়ার উন্নতি ঘটিয়ে রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা হ্রাস করে। বিশেষ ভাবে ডায়াবেটিস (মধুমেহ) মেলিটাস রোগীদের খাদ্যের সাথে মেথি মিশিয়ে দিলে রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা উল্লেখযোগ্য ভাবে হ্রাস করতে সহায়তা করে। দৈনিক একবার বা দু'বার 5 থেকে 50 গ্রাম মেথির বীজ খাদ্যের সাথে মিশিয়ে খেলে টাইপ 2 নিয়ন্ত্রণে খুবই কার্যকরী হয়। টাইপ 1'এর ক্ষেত্রে বেশি মাত্রার প্রয়োজন হয় যেমন, খাদ্য-সম্পূরক ছাড়াই প্রায় 50 গ্রাম গুড়ো। মেথির বীজ থেকেই মেথির গুড়ো তৈরি হয়। এই গুড়ো দৈনিক দুইবার খেতে হয়। এর প্রভাব পাওয়া যাবে রক্তে এবং প্রস্রাবে গ্লুকোজের মাত্রা হ্রাসে।

মেথির বড়ি ব্যায়ামের উপকারিতা বৃদ্ধি করে - Fenugreek tablets improve exercise in Bengali

ব্যায়ামের কার্যকারিতা বৃদ্ধিতে মেথির বীজ নিয়ে বিভিন্ন গবেষণার ফলগুলি পরস্পর বিরোধী। কিন্তু অধিকাংশ গবেষণার ফলই দেখিয়েছে যে দৈনিক 300 গ্রাম মেথির সম্পূরক (supplement) ,  যেমন ইণ্ডাস বায়োটেক, 8 সপ্তাহ ধরে নিয়মিত সেবন করলে দেহের চর্বি হ্রাস পায় এবং পেশির শক্তি এবং সহনশীলতা বৃদ্ধি পায়। জানা আছে যে এতে লেগ প্রেস (leg press) এবং বেঞ্চ প্রেস (bench press) 'এর কার্যকারিতা বৃদ্ধি করে, প্রথম দিকের গবেষকরা যেমন দেখিয়েছেন।  এতে ব্যায়ামের উপকারিতা বৃদ্ধি পেলেও ব্যায়ামকারীরা তাদের ব্যায়ামের সময়ের দৈর্ঘ্য অথবা ওজন আরও বেশি তোলার ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারেন না।

মেথির জলের উপকারিতা - Benefits of methi dana water in Bengali

মেথি একটি প্রাকৃতিক ওজন কমানোর উপাদান, যা, বিশেষত ভারত বর্ষে মেথির জল করে, প্রাচীনকাল থেকে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।  এর প্রাকৃতিক ভাবে ওজন হ্রাস করার গুণের জন্য এর সম্ভাব্য কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই, যা অন্য ওজন হ্রাসের পদ্ধতি এবং পিল'এর আছে। এটা শুধু ওজনই হ্রাস করতেই সাহায্য করে না, বিভিন্ন উপসর্গ যেমন উচ্চ রক্ত চাপ (হাইপারটেনশান) , ইনসুলিন বিরোধিতা এবং হজমের গোলমাল হ্রাস করতেও সাহায্য করে, যা নিয়ে অন্য অধ্যায়ে আলোচনা করা হয়েছে। এটা সম্ভব হয় গ্যালটোমানান'এর জন্য, যা মেথির বীজে প্রাপ্ত একটি জলে দ্রবীভূত হওয়া হেটারো-পলিস্যাকারাইড। এর কাজ হচ্ছে ক্ষুধা হ্রাস করা; এতে মনে হবে যে পেট ভর্তি আছে। কি ভাবে মেথি ব্যবহার করে ওজন হ্রাস করা যায়, তা পরবর্তি কোন অধ্যায়ে আলোচনা করা যাবে।

 (আরও পড়ুন: ওজন হ্রাস করার খাদ্য সারণি

উচ্চ রক্ত চাপে মেথির গুড়ো - Methi powder for hypertension in Bengali

মানব দেহের ওজন হ্রাস করা ছাড়াও মেথির বীজ উচ্চ রক্ত চাপের (হাইপারটেনশান) ব্যবস্থাপনা এবং নিয়ন্ত্রণে কার্যকর। উচ্চ রক্ত চাপের প্রাথমিক কারণ হল উচ্চ মাত্রায় কম ঘনত্বের লিপোপ্রোটিন'এর (লো ডেনসিটি লিপোপ্রোটিন, এলডিএল) উপস্থিতি। একে 'খারাপ (ব্যাড) কোলেস্টেরল' বলা হয়। উচ্চ মাত্রায় এলডিএল এবং নিম্ন মাত্রায় এইচডিএল উচ্চ রক্তচাপের প্রধান কারণ। এলডিএল'এর প্রভাব ভাল করে বোঝা গেলেও, এইচডিএল'এ উপরে মেথি বীজের প্রভাব সংক্রান্ত গবেষণাগুলির ফলাফল এখনও পরস্পরবিরোধী।

 (আরও পড়ুন: উচ্চ কোলেস্টেরলের কারণ এবং চিকিৎসা

কোষ্ঠকাঠিন্যে মেথির গুড়ো - Fenugreek powder for constipation in Bengali

বিভিন্ন প্রকারের হজমের সমস্যার চিকিৎসায় বহু যুগ ধরেই আয়ুর্বেদে মেথির ব্যবহার হচ্ছে। দেহের তাপমাত্রা বৃদ্ধি এবং আরামদায়ক প্রভাবের জন্য হজমের গোলমালে, যেমন কোষ্ঠকাঠিন্য এবং পেট ফাঁপা, এর ব্যবহার হয়। এর ব্যবহারে শরীরের বিভিন্ন কার্যক্রমের ভারসাম্য বজায় থাকে। দিনে অন্তত দু'বার মেথির গুড়ো খেলে হজমশক্তির বৃদ্ধি হয়, ফলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়।  এর কারণ হয় মেথির বীজে উচ্চ মাত্রায় তন্তুর উপস্থিতি।

মেথির গুড়ো প্রদাহ হ্রাস করে - Fenugreek powder reduces inflammation in Bengali

মেথির বীজে লিনোলেনিক এবং লিনোলেইক অ্যাসিড থাকে, যাদের প্রদাহ-বিরোধী (অ্যান্টি-ইনফ্লামেটারি) গুণ দেহে প্রদাহের প্রভাব কমায়। মেথির বীজের নির্যাস নিয়ে গবেষণাও দেখাচ্ছে যে রোগীদের সন্ধি-বাতের প্রদাহ (আর্থরাইটিক ইনফ্লামেশান) হ্রাস করে। কাজেই মেথির গুণগুলি হল সন্ধি-বাত বিরোধী এবং প্রদাহ বিরোধী।

সন্ধিবাতে মেথির নির্যাস - Fenugreek extract for arthritis in Bengali

মেথির বীজে লিনোলেনিক এবং লিনোলেইক অ্যাসিড থাকে, যাদের প্রদাহ-বিরোধী (অ্যান্টি-ইনফ্লামেটারি) গুণ দেহে প্রদাহের প্রভাব কমায়। মেথির বীজের নির্যাস নিয়ে গবেষণাও দেখাচ্ছে যে রোগীদের সন্ধি-বাতের প্রদাহ (আর্থরাইটিক ইনফ্লামেশান) হ্রাস করে। কাজেই মেথির গুণগুলি হল সন্ধি-বাত বিরোধী এবং প্রদাহ বিরোধী।

মাসিকের ব্যথায় মেথির দানা - Methi dana for menstrual pain in Bengali

মহিলাদের প্রভূত শারীরিক সমস্যা মেথির বীজ উপশম করে। এইগুলির মধ্যে অন্যতম হল ডিসমেনোর্হিয়া'র চিকিৎসা। গবেষণাগুলি প্রস্তাব করছে যে মাসিকের প্রথম তিন দিন দৈনিক তিন বার 1800-2700 মিলিগ্রাম এবং তারপরে বাকি দিনগুলিতে দৈনিক তিন বার 900 মিলিগ্রাম মেথির বীজ খেলে ডিসমেনোর্হিয়া'র ভাল ব্যবস্থাপনা হয়। যে মহিলারা যন্ত্রণাদায়ক মাসিক চক্রে কষ্ট পাচ্ছেন তাদের জন্য এই মাত্রা বেদনা হ্রাস করে সাথে সাথে বেদনাহ্রাসক ঔষধের প্রয়োজনও কম হয়।

পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিন্ড্রোম'এ (পিসিওএস) মেথির নির্যাস - Fenugreek extract for polycystic ovarian syndrome (PCOS) in Bengali

মহিলাদের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিষয়ে মেথির আর একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব হল পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিন্ড্রোম'এর নিয়ন্ত্রণ, বিশেষত মাসিক চক্রের নিয়ন্ত্রণ। প্রথম দিকের গবেষকরা প্রস্তাব করেছেন যে বিশেষ ধরণের মেথির বীজ, একটি বিশেষ পরিমাণে খেলে ঋতু চক্রের দৈর্ঘ্য এবং দু'টি মাসিকের মধ্যবর্তী সময়ের ব্যবধান নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে, যেগুলি পিসিওএস রোগীদের ক্ষেত্রে বিশৃঙ্খল হয়ে পড়ে।  এই গবেষকরা প্রস্তাব করেছেন যে মেথির বীজের কয়েক ধরণের নির্যাস, যেমন ফ্যুরোসিস্ট, সেফাম আইএনসি, পিস্কাটায়ে, এনজে, 1000 মিলিগ্রাম পরিমাণ উপরে বর্ণিত উপকারগুলিকে সহায়তা করতে পারে। অধিকন্তু, দীর্ঘ দিন ধরে এই ধরণের মেথির বীজ খেলে  ডিম্বাশয়ের সিস্ট'এর সামগ্রিক আয়তন হ্রাস করতে সহায়তা করবে।

শ্বাসনালীর রোগে মেথির পাতা - Methi leaves for respiratory tract disorders in Bengali

প্রদাহ-বিরোধী এবং নিরাময়ের ক্ষমতা থাকার কারণে শ্বাসযন্ত্রের রোগের লক্ষণগুলির তীব্রতা হ্রাস করতে মেথির ব্যবহার বহুল প্রচলিত। অধিকন্তু, এর ব্যাকটেরিয়া এবং ভাইরাস বিরোধী (অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়া, অ্যান্টি-ভাইরাস) চরিত্রের জন্য শ্বাসনালীর সংক্রমণের জন্য দায়ী উদ্ভিজ্জাণুকে (মাইক্রো-অরগ্যানিজম) ধ্বংস করতে সাহায্য করে। এর স্নিগ্ধকর প্রভাব শ্লৈষ্মিক ঝিল্লিকে (মিউকাস মেমব্রেন) শীতল করে এবং শ্লেষ্মা-নির্গমনে সাহায্য করে। এছাড়াও, শরীরের উপর মেথির গরম প্রভাব শ্বাস-প্রশ্বাসের বিভিন্ন প্রকারের অসুখের, যেমন ব্রঙ্কাইটিস, এবং সাধারণ সংক্রমণ যেমন সর্দিকাশির থেকেও আরাম দেয়।

বিভিন্ন নির্দিষ্ট অসুখের জন্য মেথির নির্ধারিত মাত্রার বিষয় উপরে আলোচিত হয়েছে। এখানে মেথির ব্যবহারের কয়েকটি প্রণালী দেওয়া হল যাতে আপনার দৈনন্দিন জীবনে মেথিকে গৃহ-প্রতিকার এবং রান্নাঘরের সক্রিয় উপাদান হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। 

মেথির জল

দেহের ওজন হ্রাসে অত্যন্ত দক্ষ। নিচের ধাপগুলি অনুসরণ করে বাড়িতে খুব সহজেই মেথির জল তৈরি করা যেতে পারে:

  • একটি পাতলা কাপড়কে জলে ভিজিয়ে নিন। এর উপরে মেথির বীজ রাখুন। এর উপরে একটি ভারি পাত্র দিয়ে চাপা দিন।
  • এই ভাবে তিন রাত্রি রেখে তারপর ওজনটি সরিয়ে নিন।
  • দেখবেন যে মেথির বীজ থেকে কল বেড়িয়ে বড় হয়েছে। এই জল একটি ওজন হ্রাস-কারী পানীয়।

বিকল্প হিসাবে মেথির গুড়ো গরম জলে মিশিয়ে পান করলে একই রকমের উপকার পাওয়া যাবে।

মেথির চা

এতক্ষণে আপনি জেনে গিয়েছেন যে টাইপ 2 মধুমেহ নিয়ন্ত্রণ করতে মেথি অত্যন্ত দক্ষ। আপনার যদি এই অসুখ থাকে, তাহলে নিচের প্রণালীটি আপনার কাজে আসবে। মেথি এবং রান্নাঘরে পাওয়া উপাদানগুলি দিয়ে সহজেই এটি বাড়িতে তৈরি করতে পারেন। নিচের ধাপগুলি অনুসরণ করবেন:

  • অল্প জল দিয়ে মেথির বীজ বেটে নিয়ে একটি লেই (পেস্ট) তৈরি করুন।
  • একটি প্যান'এর ফুটন্ত জলে এই লেই ঢেলে দিন।
  • এরপরে, এতে আপনি আপনার পছন্দ মত সুগন্ধ যেমন দারচিনি, আদা অথবা গোল মরিচ যোগ করতে পারেন।
  • পাত্রটি ঢাকা দিয়ে 5 মিনিট অল্প আঁচে বসান ছেঁকে নিয়ে পান করুন।

প্রতি দিন সকালে, খালি পেটে এই চা পান করলে আপনার রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা কমবে। ইনসুলিন এবং অন্যান্য ওষুধের উপরে আপনার নির্ভরতা কমবে।

মেথি ও মধু

মেথির কড়া স্বাদ এবং গন্ধ যদি আপনার পছন্দ না হয় তাহলে মধু যোগ করে দেখতে পারেন। মধুর পুষ্টিকর গুণগুলিও পাবেন, স্বাদও বদল হবে। এই চা তৈরির প্রণালী নিচে দেওয়া গেল:

  • মেথির লেই গরম জলে দিয়ে চা বানিয়ে তা একটি ঢাকা দেওয়া পাত্রে তিন ঘণ্টা রেখে দিন।
  • তিন ঘণ্টা পরে ছাঁকনি দিয়ে ছেঁকে তাতে মধু এবং লেবুর রস মেশান। 
  • ভাল ফল পাওয়ার জন্য প্রতি দিন সকালে এই চা পান করুন।
  • মেথির সঠিক মাত্রা নির্ভর করে বয়স, ওজন, উচ্চতা, লিঙ্গ এবং অন্যান্য বিষয়ের উপরে। সুপারিশ করা মাত্রা হল 5 থেকে 30 গ্রাম মেথির গুড়ো, দৈনিক দুই থেকে তিন বার। সব চেয়ে ভাল হল খাওয়ার আগে মেথির গুড়ো খাওয়া। উচ্চ মাত্রা, যেমন 25 থেকে 50 গ্রাম হল প্রদাহ-বিরোধী এবং উচ্চ রক্ত চাপের চিকিৎসার জন্য। কিন্তু এই উচ্চ মাত্রায় খেতে হলে চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করে নিতে হবে।
  • যদি আপনি মধুমেহ রোগী (ডায়াবেটিক) হন, তাহলে হাইপোগ্লাইসেমিয়া এড়াতে বিশেষ ব্যবস্থা নিতে হবে। এবং এই ক্ষেত্রে চিকিৎসক বা আয়ুর্বেদিক চিকিৎসকের পরামর্শ ব্যতীত মেথি কখনই খাবেন না।

যদিও এই অলৌকিক বীজের সুবিধা অগণিত, তবুও চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ না করে অত্যধিক পরিমাণে মেথির বীজ সেবন করবেন না, বিশেষত যদি আপনার স্বাস্থ্য সংক্রান্ত কোন সমস্যা থাকে। যেমন, মধুমেহ, কারণ মেথি রক্তের গ্লুকোজ'এর মাত্রার পরিবর্তন করে। যদিও মেথি একটি নিরাপদ ঔষধি এবং রান্নায় ব্যবহার করলে কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার সম্ভাবন নেই বললেই চলে, তবুও অধিক মাত্রায় ওষুধ হিসাবে সেবন করতে চাইলে তা সাবধানে করতে হবে। যদি নিচের কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয় তা হলে অবিলম্বে চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করবেন।

  1. উদরাময়
  2. পেট খারাপ
  3. পেট ফাঁপা বা গ্যাস
  4. মাথা ব্যথা
  5. মাথা ঘোরা

গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলি হল:

  1. কাশি 
  2. সাঁসাঁ করে নিঃশ্বাস ফেলা
  3. নাক বন্ধ
  4. মুখ ফুলে যাওয়া

এইগুলি দেখা যায় যখন রোগী মেথির প্রতি অত্যধিক সংবেদনশীল।

সতর্কতা

  1. গর্ভাবস্থায় মেথির বীজ সেবন করা সুপারিশ করা হচ্ছে না, কারণ এটি ভ্রূণের পরিবর্তন বা বিকৃতি আনতে পারে।
  2. ডায়াবেটিস মেলিটাস'এর ক্ষেত্রে, নির্দিষ্ট পরিমাণে এবং সতর্ক ভাবে এর ব্যবহার করতে হবে, যাতে হাইপোগ্লাইসেমিয়া (রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা কমে যাওয়া) না হয়। এটি রোগীর একটি জরুরি অবস্থা।
  3. খাদ্যে ব্যবহার ছাড়া ওষুধ হিসাবে একটানা দীর্ঘ দিন মেথির ব্যবহার করা উচিৎ নয়। একটানা 6 মাসের বেশি নয়।
  4. শিশুদের ক্ষেত্রে মেথির ব্যবহার, বিশেষত সরাসরি মেথির বীজ খাওয়া সুপারিশ করা হচ্ছে না।

उत्पाद या दवाइयाँ जिनमें Fenugreek है

তথ্যসূত্র

  1. Bahmani M et al. Obesity Phytotherapy: Review of Native Herbs Used in Traditional Medicine for Obesity. J Evid Based Complementary Altern Med. 2016 Jul;21(3):228-34. PMID: 26269377
  2. Kilambi Pundarikakshudu, Deepak H. Shah, Aashish H. Panchal, Gordhanbhai C. Bhavsar. Anti-inflammatory activity of fenugreek (Trigonella foenum-graecum Linn) seed petroleum ether extract. Indian J Pharmacol. 2016 Jul-Aug; 48(4): 441–444. PMID: 27756958
  3. United States Department of Agriculture Agricultural Research Service. Basic Report: 02019, Spices, fenugreek seed. National Nutrient Database for Standard Reference Legacy Release [Internet]
  4. Nagulapalli Venkata KC, Swaroop A, Bagchi D, Bishayee A. A small plant with big benefits: Fenugreek (Trigonella foenum-graecum Linn.) for disease prevention and health promotion.. Mol Nutr Food Res. 2017 Jun;61(6). PMID: 28266134
  5. Arpana Gaddam et al. Role of Fenugreek in the prevention of type 2 diabetes mellitus in prediabetes. J Diabetes Metab Disord. 2015; 14: 74. PMID: 26436069
  6. Chris Poole et al. The effects of a commercially available botanical supplement on strength, body composition, power output, and hormonal profiles in resistance-trained males. J Int Soc Sports Nutr. 2010; 7: 34. PMID: 20979623