myUpchar प्लस+ के साथ पूरेे परिवार के हेल्थ खर्च पर भारी बचत

অ্যাপল সিডার ভিনিগার সাম্প্রতিককালে খুব জনপ্রিয় হয়েছে এবং পুষ্টিদানের ব্যাপারে এটির বিরাট মূল্য। বিভিন্ন পারিবারিক ব্যবহার এবং রান্নার কাজে এটি শতাব্দীকাল ধরে ব্যবহার হয়ে আসছে। সারা বিশ্বে বিভিন্ন সুপারমার্কেট এবং মুদিখানার দোকানে বিভিন্ন ধরনের ভিনিগার পাওয়া যায়, কিন্তু তাদের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় হচ্ছে অ্যাপল সিডার ভিনিগার। এটিকে পুষ্টির কারখানা বলা যেতে পারে এবং এর একাধিক স্বাস্থ্যোপকারিতা আছে।

অ্যাপল সিডার ভিনিগার (যা ACV নামেও পরিচিত) হচ্ছে এমন একটি ভিনিগার যা আপেল গাঁজিয়ে করা হয়। আপেলে চাপ দিয়ে নিঙড়ে তার রস বার করা হয়। এই আপেলর রসে ইস্ট মেশানো হয় যা ফলের মধ্যে শর্করাকে অ্যালকোহলে পরিণত করে। এই প্রক্রিয়াকেই গাঁজানো বলা হয়। এরপর ওই অ্যালকোহলে ব্যাক্টিরিয়া যোগ করা হয় যা এটিকে অ্যাসেটিক অ্যাসিডে পরিণত করে। ভিনিগারে উপস্থিত অ্যাসেটিক এবং ম্যানিক অ্যাসিড ভিনিগারের অম্ল স্বাদ এবং বিশেষ গন্ধের জন্য দায়ী। এর রঙ অনুজ্জ্বল থেকে মাঝারি ধরনের হলদেটে-কমলা হয়ে থাকে। চাটনি, ম্যারিনেড, স্যলাডের ওপরে ড্রেসিং, খাদ্য সংরক্ষণের উপাদান হিসাবে এটির ব্যবহার হয়ে থাকে।

বাজারে যে সব অ্যাপল সিডার ভিনিগার পাওয়া যায় তা পরিশ্রুত এবং প্যাস্চারাইজ করা যাতে এটি দেখতে স্বচ্ছ হয় এবং সমস্ত ব্যক্টিরিয়া যাতে মেরে ফেলতে পারে এবং দীর্ঘদিন কার্যকরী থাকে। কিন্তু সেগুলি আসল অ্যাপল সিডার ভিনিগার নয়। আসলটি হচ্ছে ভিনিগার উইথ দ্য মাদার। অপরিশ্রুত ভিনিগার বা বিভিন্ন রকমের ভিনিগার উইথ দ্য মাদারের (আসল ব্যক্টিরিয়্যাল কালচার যা দিয়ে ভিনিগার প্রস্তুত হয়) মধ্যে আপনি প্রকৃতভাবে দেখতে পান যে পরিপোষক পদার্থ এবং ব্যাক্টিরিয়া দিয়ে মাদার কালচার প্রস্তুত হয়। বোতলের তলায় এটি আপনি দেখতে পাবেন, এবং ভিনিগারের রঙ ঘোলাটে হবে। এটি হচ্ছে জৈব অ্যাপল সিডার ভিনিগার, যা পাস্চুরাইজ করা হয়নি, এবং যার বহু ভেষজ গুণ আছে।

সারা বিশ্বে স্বাস্থ্য সচেতন মানুষের মধ্যে অ্যাপল সিডার ভিনিগার ক্রমেই জনপ্রিয় হচ্ছে। মনে করা হয়, এর বহুবিধ উপকারিতার মধ্যে আছে রক্তচাপ কমানো, ক্যান্সার এবং ওজন কমে যাওয়ার ঝুঁকি হ্রাস করা।

আর্য নামে এক প্রাচীন যাযাবর জাতি আপেল থেকে  একটি অম্ল স্বাদের সুরা প্রস্তুত করত এবং সেটিকেই আজকের সিডারের জনক বলা যেতে পারে। আর্যদের কাছ থেকে সিডার গ্রিক এবং রোমানদের কাছে পৌঁছায়। একটি ধারণা আছে যে সামুরাই যোদ্ধারা শক্তিবৃদ্ধি এবং সহনশীলতা বাড়ানোর জন্য অ্যাপল সিডার ভিনিগার পান করত।

  1. অ্যাপল সিডার ভিনিগারের পুষ্টির তথ্য - Apple cider vinegar nutrition facts in Bengali
  2. অ্যাপল সিডার ভিনিগারের স্বাস্থ্যোপকারিতা - Apple cider vinegar health benefits in Bengali
  3. অ্যাপল সিডার ভিনিগারের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া - Apple cider vinegar side effects in Bengali
  4. মনে রাখতে হবে - Takeaway in Bengali

অ্যাপল সিডার ভিনিগারে প্রায় 21 ক্যালরি শক্তি আছে। এটিতে কোনও স্নেহ পদার্থ, কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন বা ফাইবার (তন্তু) নেই। এটি ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম,  ক্যালসিয়াম,  এবং পটাসিয়ামের মতো আকরিক সমৃদ্ধ পানীয়। ক্যালরি না বাড়িয়ে আপনার খাদ্যে নতুন স্বাদ এনে দিতে এর জুড়ি নেই।

USDA নিউট্রিয়্যান্ট ডেটাবেস অনুযায়ী, 100 g অ্যাপল সিডার ভিনিগারে নিম্নলিখিত উপাদান থাকে:

পরিপোষণ প্রতি 100 g-এ মূল্যমান
জল 93.81 g
শক্তি 21 kcal
ছাই 0.17 g
কার্বোহাইড্রেট 0.93 g
শর্করা 0.4 g
গ্লুকোজ 0.1 g
ফ্রাকটোজ 0.3 g
খনিজ পদার্থ  
ক্যালসিয়াম 7 mg
লোহা 0.2 mg
ম্যাগনেসিয়াম 5 mg
ফসফরাস 8 mg
পটাসিয়াম 73 mg
সোডিয়াম 5 mg
জিঙ্ক 0.04 mg
তামা 0.008 mg
ম্যাঙ্গানিজ 0.249 mg
  • ওজন কমাতে:  অ্যাপল সিডার ভিনিগারের অন্যতম ব্যবহার হল ওজন কমানোর প্রক্রিয়ায় সহায়তা করা। এটি চর্বি জমতে বাধা দেয় বলে পেটে চর্বি জমতে পারে না, যা স্থূলত্ব নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।
  • ডায়বিটিসের জন্য: অ্যাপল সিডার ভিনিগারের অন্য গুরুত্বপূর্ণ ব্যবহার হল এটি খাওয়ার পরে গ্রহণ করলে রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।
  • শ্বাসে দুর্গন্ধের জন্য:  অ্যাপল সিডার ভিনিগার শ্বাসে দুর্গন্ধ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে কারণ এটি দাঁতের ক্ষয়ের ফলে যে গর্ত হয় সেখানকার pH মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে, যা ব্যাক্টিরিয়া বৃদ্ধি আটকায়।
  • ত্বক এবং চুলের জন্য: অ্যাপল সিডার ভিনিগার P অ্যাকনি নিয়ন্ত্রণ করে  ব্রণ বা মুখের দাগ কমায় যা কজেটিভ অর্গানিজম। এটি চুলে ব্যবহার করলে চুল রেশমি এবং উজ্জ্বল হয় এবং মাথার খুলিতে চুলকানি খুস্কি, মাথার চামড়া শুকিয়ে যাওয়া কমে, মাথার উকুন নিয়ন্ত্রিত হয়।
  • অন্যান্য উপকার: অ্যাপল সিডার ভিনিগার ব্যবহারে বিপাকীয় প্রক্রিয়া সহজ হয় এবং বিবিধ অণুজীবির বিরুদ্ধে এটির প্রতিক্রিয়া আছে, যা কানের এবং নখে সংক্রমণ কমায়। তাছাড়া, শরীরে খনিজ পদার্থ শোষণের উন্নতিতে এটি সাহায্য করে।    
  • ক্যান্সারের জন্য: অ্যাপল সিডার ভিনিগার টিউমারের আকার হ্রাস করতে সাহায্য করে এবং গ্যাস্ট্রিক ক্যান্সারের বিরুদ্ধে কাজ করার ক্ষমতা রাখে।
  • হার্টের জন্য: অ্যাপল সিডার ভিনিগার রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায় এবং কার্ডিওভাসকিউলার অসুখ প্রতিরোধ ত্বরান্বিত করে।
  1. ট্যাবলেট বা তরল যা কোনওভাবেই অ্যাপল সিডার ভিনিগার খাওয়া হোক না কেন, এর উচ্চ মাত্রায় অম্লতার জন্য অতিরিক্ত ব্যবহারে খাদ্যনালী, দাঁতের এনামেল এবং পাকস্থলীর লাইনিং ক্ষয় এবং ক্ষতিগ্রস্ত করে। দাঁতে হলদে ছোপ ফেলা ছাড়া অ্যাপল সিডার ভিনিগার দাঁতের শিরশিরানি বাড়ায়। এছাড়া, অপরিশ্রুত অ্যাপল সিডার ভিনিগার সরাসরি ত্বকের ওপর লাগালে র‌্যাশ, চুলকানি হতে পারে এবং পোড়ার অনুভূতি হতে পারে।
  2. সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, অ্যাপল সিডার ভিনিগারে উচ্চ মাত্রায় অ্যাসেটিক অ্যসিড থাকার কারণে রক্তে পটাসিয়ামের মাত্রা কমায়। এই অবস্থাকে বলা হয় হাইপোক্যালেমিয়া। এই পরিস্থিতিতে দুর্বলতা, খিঁচ ধরা, বমিভাব, বহুমূত্রতা, রক্তচাপ কমে যাওয়া, হৃদস্পন্দনে পরিবর্তন এবং পক্ষাঘাতের মতো উপসর্গ দেখা যায়।
  3. অ্যাপল সিডার ভিনিগার এর অম্লতার জন্য সহজেই কিছু ওষূধ যেমন জোলাপ (কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে), ডায়রেটিকস (শরীর থেকে অতিরিক্ত জল এবং নুন বার করে দেয়), এবং ইনসুলিনের সঙ্গে বিক্রিয়া করে। যেহেতু অ্যাপল সিডার ভিনিগার সরাসরি ইনসুলিন এবং রক্তে শর্করার মাত্রার ওপরে প্রভাব ফেলে, যদি রক্তচাপ এবং রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণের ওষুধের সঙ্গে যুগ্মভাবে খাওয়া হয় তাহলে তার ফল খুব খারাপ হতে পারে। ডায়বিটিস আক্রান্ত রোগীদের সতর্কতার সঙ্গে এটি বাবহার করতে হবে কারণ এর মধ্যে ক্রোমিয়াম থাকতে পারে যা ইনসুলিনের হার প্রভাবিত করতে পারে।
  4. অতিরিক্ত অ্যাপল সিডার ভিনিগারে গ্রহণ হাড়ের আকরিক ঘনত্ব বা মিনারেল ডেনসিটি কমিয়ে দিতে পারে, ফলত হাড় ভঙ্গুর হয়ে পড়ে। কাজেই, যে সব ব্যক্তি অস্টিওপোরোসিসে আক্রান্ত তাঁদের কখনও অ্যাপল সিডার ভিনিগার নিয়ে পরীক্ষানিরীক্ষা করা উচিত হবে না।
  5. অ্যাপল সিডার ভিনিগারে উচ্চ মাত্রায় অ্যাসেটিক অ্যসিডের উপস্থিতির কারণে এর অতিরিক্ত ব্যবহারে ফুলে যাওয়া, শ্বাস কষ্ট, গলায় যন্ত্রণা এবং ক্ষত হতে পারে।

অনেকেই যে অ্যাপল সিডার ভিনিগার থেকে দূরে থাকেন তার প্রধান কারণ এর স্বাদ। তবে এর স্বাদ পাল্টানো যেতে পারে যদি জল আর মধু মেশানো হয়। এবং সরাসরি অ্যাপল সিডার ভিনিগার পান করা ক্ষতিকর কারণ এর মধ্যে থাকা অ্যসিড আপনার খাদ্যনালীকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। নিয়মিত অ্যাপল সিডার ভিনিগার খেলে রোগবালাই দূরে থাকে। কিন্তু কোনও খাদ্যই নিখুঁত হয় না এবং অতিরিক্ত ব্যবহারে পার্শ্বপ্রতিক্রয়া দেখা দেয়। কাজেই, স্বাস্থ্যের উন্নতি পরিপূর্ণভাবে পেতে গেলে পরিমিত হারে অ্যাপল সিডার ভিনিগার খাওয়া উচিত।

और पढ़ें ...