myUpchar प्लस+ के साथ पूरेे परिवार के हेल्थ खर्च पर भारी बचत

গ্রীষ্মপ্রধান এবং প্রায় গ্রীষ্মপ্রধান অঞ্চলগুলিতে পেঁপে হচ্ছে একটা প্রধান ফল। আপনি কি কখনও ভেবেছেন পেঁপে ফল কোথায় প্রথম উৎপন্ন হয়েছিল? ক্রান্তীয় (গ্রীষ্মমণ্ডলীয়) আমেরিকার দেশজ হচ্ছে পেঁপে ফল এবং মেক্সিকোতে প্রথম জন্মেছিল। পর্তুগীজরা ভারতে পেঁপের সূচনা করেছিল। ক্রিস্টোফার কলম্বাস দ্বারা একে “দেবদূতদের ফল” বলে অভিহিত করা হয়েছিল। পেঁপে “প-প” হিসাবেও পরিচিত।  

পেঁপের স্বাদ প্রায়ই ফুটি বা কাঁকুড়ের সাথে তুলনা করা হয়, কিন্তু কম মিষ্টি। পেঁপের আসল স্বাদ বোঝা যায় যখন এটা সম্পূর্ণভাবে পাকে। পেঁপের রং সবুজ হয় যখন এটা কাঁচা থাকে। যখন এটা আধা পাকা হয়, এটা আধা সবুজ এবং আধা হলুদ হয়। যখন এটা সম্পূর্ণ পাকা হয়, পেঁপের রং হলুদ থেকে কমলা পর্যন্ত বিভিন্ন ধরণের হতে পারে। এই ফলের স্বাস্থ্য উপযোগিতার একটা ব্যাপক বৈচিত্র্য রয়েছে। পেঁপের স্বাদ এবং এর স্বাস্থ্য উপযোগিতার ব্যাপক ব্যাপ্তি একে একটা অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং উপভোগ্য ফল হিসাবে পরিণত করে। এটা প্রায় সারা বৎসর ধরে পাওয়া যায়। লোকে এই ফলটাকে সাধারণতঃ তাঁদের জলখাবার এবং ফলের স্যালাডে সামিল করে।    

পেঁপে একটা আদর্শ ফল যা সহজেই আমাদের বাড়ির বাগানে এবং বাড়ির পিছনের উঠোনে ফলানো যেতে পারে। এটা দ্রুত বাড়ে এবং এটা পোঁতার 8 থেকে 10 মাস পরেই ফল ধরতে শুরু করে। এটা একটা সতেজকারক এবং সুস্বাদু ফল। এটা ভিটামিনে ভরা। এটা লবণ এবং গোলমরিচ আবার চিনি এবং লেবু দিয়েও একটা ফল হিসাবে খাওয়া যেতে পারে। অপক্ক ফল একটা তরকারি হিসাবে খাওয়া যায়। আমরা এটা থেকে আচারও বানাতে পারি।

পেঁপে ফলে প্যাপাইন বা প্যাপেন নামে একটা এনজাইম থাকে এবং এটা প্রসাধনী দ্রব্য, চিউয়িং গাম তৈরি করতে, ঔষধ প্রস্তুতকারক শিল্প, আঠালো বস্তু, ইত্যাদিতে ব্যবহৃত হয়। এটা মনে করা হয় যে বিশ্বব্যাপী প্রায় 40 ধরণের পেঁপে চাষ করা হয়। এগুলো নাশপাতি-আকৃতির ফল যা 20 ইঞ্চি পর্যন্ত লম্বা হতে পারে। পেঁপের শত শত নরম, কালো জেলির মত আঠালো বীজ থাকে। প্রতিটা গোটা ফল 0.49 kg থেকে 1 kg-র মত ওজন হতে পারে। বাজারে সাধারণভাবে দেখা ফলগুলি সাধারণতঃ প্রায় 7 ইঞ্চি লম্বা এবং ওজনে প্রায় 1 kg দেখা যায়। এটা আরাঁধা অবস্থায় একটা ফল হিসাবে খাওয়া যেতে পারে, একটা ঘন মসৃণ তরলীকৃত পানীয় অথবা এমনকি একটা মিল্কশেক বানানো যেতে পারে। এতে প্রাকৃতিক ফাইবার, ক্যারোটিন, ভিটামিন সি এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ খনিজ আছে। শিকড়, বাকল, খোসা, বীজ, এবং কোমল মজ্জা সহ সমগ্র পেঁপে গাছ ঔষধি গুণসম্পন্ন বলেও জ্ঞাত।       

ভারতে, দেশের নানা প্রান্তে পেঁপে ফলানো হয়। এই ফলের প্রধান উৎপাদনকারীদের মধ্যে আছে দক্ষিণে অন্ধ্র প্রদেশ, কর্ণাটক, এবং কেরালা, পূর্বে পশ্চিম বঙ্গ, আসাম এবং ওড়িশা এবং পশ্চিম এবং মধ্য ভারতে গুজরাট, মহারাষ্ট্র এবং মধ্য প্রদেশ। বিশ্বে ভারত হচ্ছে পেঁপের বৃহত্তম উৎপাদক। এই দেশ প্রায় 3 মিলিয়ন টন পেঁপে উৎপাদন করে যা পেঁপের সমগ্র বিশ্বে উৎপাদনের অর্ধেক। ভারত এর প্রতিবেশী দেশগুলি যেমন বাহরিন, সৌদি আরব, ইউএই (UAE), কুয়েত, কাতার, এবং নেদারল্যান্ডস-এও পেঁপে রপ্তানি করে।     

পেঁপের সম্বন্ধে কিছু মৌলিক তথ্য:

  • উদ্ভিদবিজ্ঞানগত নাম: ক্যারিকা প্যাপায়া।
  • জাতি: ক্যারিকাসিয়ি
  • প্রচলিত নাম: পেঁপেকে সাধারণভাবে পা-প বা প-প বলা হয়। একে কখনও কখনও “গাছ ফুটি” হিসাবেও উল্লেখ করা হয়। 
  • সংস্কৃত নাম: এরন্ড কর্কটী
  • ব্যবহৃত অংশ: ফল, পাতা, ফুল, ডাঁটা বা কাণ্ড, শিকড়, এবং বীজ সবকটা বিভিন্ন উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা যায়।
  • উৎস: এটা মেক্সিকো এবং দক্ষিণ আমেরিকার উত্তর অংশের দেশজ। কিন্তু এখন এগুলো বিশ্বের প্রায় সব ক্রান্তীয় (গ্রীষ্মমণ্ডলীয়) এলাকায় ফলে।
  • কৌতূহলোদ্দীপক তথ্য: জুন মাসকে জাতীয় পেঁপে মাস গণ্য করা হয়।
  1. পেঁপের পুষ্টি তথ্য - Papaya nutrition facts in Bengali
  2. পেঁপের স্বাস্থ্য উপযোগিতা - Papaya health benefits in Bengali
  3. পেঁপের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া - Papaya side effects in Bengali
  4. মনে রাখার মত মূল তথ্য - Takeaway in Bengali

পেঁপে জল উপাদানে সমৃদ্ধ। এটা এবং এর সাথে আঁশ বা তন্তু উপাদান কোষ্ঠকাঠিন্যে ভোগা মানুষদের সাহায্য করতে পারে। পেঁপে ক্যালশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, এবং পটাশিয়াম-এর মত খনিজেও সমৃদ্ধ। পেঁপের মধ্যে কম সোডিয়াম থাকে। পেঁপের মধ্যে অধিক পটাশিয়াম, কম সোডিয়াম উপাদান থাকা একে সেইসমস্ত ব্যক্তিদের পক্ষে আদর্শ হিসাবে উপস্থিত করে যাঁরা কার্ডিওভাস্কুলার বা হৃদরোগে ভুগছেন। ভিটামিন এ এবং সি-তে সমৃদ্ধ, পেঁপে আপনার ত্বক সুরক্ষা করতে এবং একে আর্দ্র এবং স্বাস্থ্যকর রাখার জন্য একটা উৎকৃষ্ট উৎস।   

ইউএসডিএ নিউট্রিয়েন্ট ডেটাবেস অনুযায়ী, 100 gm কাঁচা পেঁপেতে নীচের পরিপোষকগুলি থাকেঃ 

পরিপোষক 100gm প্রতি গুণমান
জল 88.06 g
শক্তি 43 kcal
প্রোটিন 0.47 g
চর্বি 0.26 g
কার্বোহাইড্রেট 10.82 g
আঁশ বা তন্তু 1.7 g
চিনি 7.82 g

 

খনিজ 100 g প্রতি গুণমান
ক্যালশিয়াম 20 mg
লোহা 0.25 mg
ম্যাগনেশিয়াম 21 mg
ফসফরাস 10 mg
পটাশিয়াম 182 mg
সোডিয়াম 8 mg
জিঙ্ক 0.08 mg

 

ভিটামিন 100 g প্রতি গুণমান
ভিটামিন A 47 µg
ভিটামিন B1 0.023 mg
ভিটামিন B2 0.027 mg
ভিটামিন B3 0.357 mg
ভিটামিন B6 0.038 mg
ভিটামিন B9 37 µg
ভিটামিন C 60.9 mg
ভিটামিন E 0.3 mg
ভিটামিন K 2.6 µg

 

চর্বি 100 g প্রতি গুণমান
ফ্যাটি অ্যাসিড, স্যাচুরেটেড 0.081 g
ফ্যাটি অ্যাসিড, মোনোআনস্যাচুরেটেড 0.072 g
ফ্যাটি অ্যাসিড, পলিআনস্যাচুরেটেড 0.058 g

ত্বকের ক্ষতের জন্য পেঁপে - Papaya for skin ulcers in Bengali

সম্পূর্ণ পেঁপে গাছ এর ফল, বাকল, পাতা, এবং বীজ সমেত ঔষধি গুণসম্পন্ন বলে পরিচিত। এটা প্রধানতঃ বিভিন্ন খনিজগুলির অধিক উপাদানের কারণে হয়, বিশেষতঃ ভিটামিন A, B এবং C এবং প্যাপাইন নামে কথিত একটা এনজাইম যা পেঁপেতে থাকে। কাইমোপ্যাপিন নামে আর একটা এনজাইমও উপকারী বলে বিদিত। এই ভিটামিন এবং এনজাইমগুলির কারণে পেঁপের অ্যান্টিভাইরাল (সংক্রামক রোগের জীবাণুনাশক), অ্যান্টিফাংগাল (ছত্রাক-প্রতিরোধী) এবং অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল (জীবাণু-প্রতিরোধী) গুণগুলি আছে। পেঁপের উপর চালানো একটা সমীক্ষা দেখিয়েছিল যে পেঁপের বীজগুলির জীবাণুগুলির বৃদ্ধি দমন করার ক্ষমতা আছে এবং ক্রনিক ত্বকের ক্ষত কার্যকরভাবে চিকিৎসা করার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে।     

অ্যাজমার (হাঁপানি রোগ) জন্য পেঁপে - Papaya for asthma in Bengali

বিটা-ক্যারোটিন হল একটা লাল-কমলা প্রাকৃতিক রঞ্জক পদার্থ যা অ্যাজমা প্রতিরোধ করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এই রঞ্জক কিছু শাকসবজি এবং ফলে প্রচুর পরিমাণে বিদ্যমান। সেই সমস্ত ফলের একটা হচ্ছে পেঁপে। টোগো, পশ্চিম আফ্রিকার একটা অঞ্চল, বহু রোগের চিকিৎসা করার জন্য গাছগাছড়া-ভিত্তিক ঔষধির ব্যবহার এখনও চালিয়ে যাচ্ছে। একটা সমীক্ষা চালানো হয়েছিল এটা দেখার জন্য যে টোগোর এই গাছগাছড়া-ভিত্তিক ঔষধিগুলি অ্যাজমা চিকিৎসা করার জন্য ব্যবহার করা যায় কিনা। 98টা গাছগাছড়া যা সমীক্ষার জন্য ব্যবহার করা হয়েছিল, সেগুলির মধ্যে সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ গাছগুলির অন্যতম ছিল পেঁপে। এই সমীক্ষার মাধ্যমে, গবেষকরা অ্যাজমা চিকিৎসা করার জন্য এইসমস্ত গাছগুলি ব্যবহারের প্রাথমিক প্রমাণ দেখতে সক্ষম হয়েছিলেন।  

ম্যালেরিয়া চিকিৎসার জন্য পেঁপে - Papaya for malaria treatment in Bengali

নতুন নতুন ম্যালেরিয়া-প্রতিরোধী ঔষধগুলি আবিষ্কার করার জন্য গবেষণা চলছে। গবেষকগণ কিছু পরম্পরাগত গাছগাছড়া ব্যবহার করেছিলেন যা দক্ষিণ-পশ্চিম ভারতের মানুষরা ম্যালেরিয়া নিরাময় করার জন্য ব্যবহার করেন। এইসমস্ত গাছগাছড়ার মধ্যে ছিল পেঁপে। এইসমস্ত গাছগাছড়ার বিশেষ অংশগুলি ম্যালেরিয়া প্রতিরোধ করার জন্য একটা গুরুত্বপূর্ণ ফলাফল দেখিয়েছে।

ডেঙ্গির জন্য পেঁপের উপযোগিতা - Papaya benefits for dengue in Bengali

ডেঙ্গি জ্বর হচ্ছে একটা ভাইরাস-ঘটিত রোগ এবং প্রধানতঃ মশার কামড়ের মাধ্যমে ছড়ায়। এই রোগটা বিশ্বে বহু মানুষকে আক্রমণ করে এবং কিছু কিছু ক্ষেত্রে এই রোগ মৃত্যু ঘটায়। এই রোগের একটা প্রতিকার আবিষ্কার করার জন্য, গবেষণা চলছে। একটা সমীক্ষা দেখিয়েছে যে পেঁপে গাছের রস (জুস) আক্রান্ত রোগীর প্লেটলেট সংখ্যা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করতে পারে। অপর একটা সমীক্ষা দেখিয়েছে যে পেঁপে পাতার নির্যাস জ্বরটা কমাতে সাহায্য করতে পারে। 

হৃৎপিণ্ডের জন্য পেঁপের উপযোগিতা - Papaya benefits for heart in Bengali

খুব বেশি কোলেস্টেরল জমা হওয়া হার্ট অ্যাটাক, হাইপারটেনশন ইত্যাদির মত বেশ কিছু সংখ্যক হৃৎপিণ্ডের অসুখের দিকে নিয়ে যায়। পেঁপের মধ্যে বিদ্যমান ফাইবার, অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট এবং ভিটামিন সি ধমনীগুলিতে কোলেস্টেরল জমা এবং অক্সিডেশন প্রতিরোধ করায় সাহায্য করতে পারে। অতএব, আপনার খাদ্যতালিকায় আরও বেশি পেঁপে যোগ করার মাধ্যমে স্ট্রোক হওয়ার সম্ভাবনাগুলি উল্লেখযোগ্যভাবে কমে যায়। 

আলজহাইমার্স-এর জন্য পেঁপে - Papaya for Alzheimer's in Bengali

আলজহাইমার্স ডিজিজ (এডি) হচ্ছে সর্বাধিক পরিচিত নিউরোডিজেনারেটিভ রোগ যা বয়স্কদের স্মৃতিভ্রংশ ঘটায়। এডি থাকা রোগীরা স্মৃতির ক্রমাবনতি এবং অন্যান্য জ্ঞান সম্বন্ধীয় ক্রিয়াকলাপে ভোগেন, যা পরিশেষে সম্পূর্ণ অক্ষমতা এবং মৃত্যুর দিকে চালিত করে। গবেষণা দেখিয়েছে যে আলজহাইমার্স রোগে ভোগা রোগীদের চিকিৎসায় পেঁপে অত্যন্ত ফলপ্রদ।

ত্বকের জন্য পেঁপের উপযোগিতা - Papaya benefits for skin in Bengali

পেঁপে ভিটামিন সি এবং লাইকোপিন সমৃদ্ধ যেগুলি ত্বকের সুরক্ষা করে এবং অকালবার্ধক্য কমাতেও সাহায্য করতে পারে। একটা সমীক্ষা দেখিয়েছিল যে লাইকোপিন, ভিটামিন সি, এবং অন্যান্য অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টগুলির একটা মিশ্রণ বলিরেখা কমাতে সাহায্য করতে পারে। আর একটা সমীক্ষা দেখিয়েছিল যে 10-12 সপ্তাহ ধরে লাইকোপিন সম্পূরকগুলির ব্যবহার সূর্যের অতিরিক্ত প্রভাবের দ্বারা সৃষ্ট ত্বকের লালচেভাবে একটা লক্ষণীয় হ্রাস দেখিয়েছিল।   

ডায়াবেটিস-এর জন্য পেঁপে - Papaya for diabetes in Bengali

আপনার খাদ্যতালিকায় সামান্য কিছু অদলবদল করার দ্বারা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করা যেতে পারে। এর মধ্যে আছে ফাইবার-এর বর্ধিত গ্রহণ, ওজন কমাবার কৌশলগুলি, এবং ফল, শাকসবজি, এবং শুঁটিজাতীয় খাদ্য যোগ করা যেগুলির ইনসুলিনের ক্রিয়া ক্ষমতা বাড়াবার উপরে আরও বেশি প্রভাব থাকে। সাম্প্রতিক সমীক্ষাগুলি ইঙ্গিত করে যে ফেনাময় পেঁপে প্রণালী (এফপিপি) সম্পূরকগুলি এই সমস্যার সমাধান করতে পারে। এটা অনুমান করা হয়েছে যে এফপিপি-র মৌখিক প্রয়োগ স্বাস্থ্যবান ব্যক্তিদের এবং সেই সাথে টাইপ-II ডায়াবেটিস থাকা রোগীদের ক্ষেত্রে প্লাজমা শর্করার মাত্রায় একটা উল্লেখযোগ্য হ্রাস করার ক্ষমতা রয়েছে।  

প্রদাহের জন্য পেঁপে - Papaya for inflammation in Bengali

পেঁপে হচ্ছে বিটা-ক্যারোটিন এবং অন্যান্য অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টগুলির একটা সমৃদ্ধ উৎস। ক্রনিক প্রদাহ হচ্ছে বহু রোগের মূল কারণ এবং অস্বাস্থ্যকর খাবার এবং জীবনধারা একে আরও তীব্রতর করতে পারে। সমীক্ষাগুলি দেখাচ্ছে যে স্বাস্থ্যবান, ধূমপান না করা ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে ক্যারোটিনয়েড-সমৃদ্ধ শাকসবজি এবং ফল বেশি খাওয়া প্রদাহে একটা হ্রাস নির্দেশ করেছে।  

কোলন (মলাশয়) ক্যান্সারের জন্য পেঁপে - Papaya for colon cancer in Bengali

পেঁপেতে লভ্য পরিপোষকগুলির দ্বারা কোলন (মলাশয়) ক্যান্সার বহুল পরিমাণে প্রতিরোধ করা যেতে পারে। পেঁপেতে বিদ্যমান ফাইবার দ্বারা সুস্থ কোলন কোষগুলিকে কোলনে ক্যান্সার-সৃষ্টিকারী ক্ষতিকারক পদার্থগুলির সঙ্গে একত্রে জুড়ে যাওয়া প্রতিরোধ করা হয়।

হজমের জন্য পেঁপে - Papaya for digestion in Bengali

পেঁপের মধ্যে বিদ্যমান প্যাপাইন নামে কথিত একটা এনজাইম হজমে সাহায্য করে। চিকিৎসাগত দৃষ্টিভঙ্গী থেকে, প্যাপাইনকে এর হজমকারক গুণগুলির জন্য অতি উচ্চস্থানে রাখা হয়, যা খাবারে থাকা প্রোটিন হজম করতে সাহায্য করে। কোষ্ঠকাঠিন্য, পেট ফাঁপা, বুকজ্বালা, যন্ত্রণাদায়ক মলত্যাগ প্রতিরোধ করার জন্য, এবং একটা নিয়মিত এবং সুস্থ পরিপাক নালীর উন্নয়ন সম্ভব পেঁপের মধ্যে সমৃদ্ধ ফাইবার এবং জলীয় উপাদানের কারণে।     

  1. অ্যালার্জি এবং অস্বস্তি সৃষ্টি করে
    পেঁপে কিছু লোকের ক্ষেত্রে সম্ভবতঃ অ্যালার্জি-সংক্রান্ত প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে। পেঁপের আঠা বা রস চামড়ায় অস্বস্তি সৃষ্টি করতে পারে। যখন বেশি সংখ্যক পেঁপে পাতা খাওয়া হয়, সেগুলো পাকস্থলীকে উত্ত্যক্ত করতে পারে। এটাও মনে করা হয় যে পেঁপের রস এবং পেঁপে পাতা মৌখিকভাবে নিলে বিরূপ প্রতিক্রিয়া হওয়ার প্রবণতা থাকে। এর মধ্যে থাকা প্যাপাইন-এর ফোলা, মাথা ঘোরা, মাথা ধরা, ফুস্কুড়ি, চুলকানি ইত্যাদি সৃষ্টি করার প্রবণতা আছে। 
  2. পেঁপে গর্ভস্রাব ঘটাতে পারে
    পেঁপে গর্ভবতী মহিলাদের পক্ষে ক্ষতিকারক হতে পারে। এটা গর্ভপাত ঘটাতে পারে। একে একটা ‘গরম’ ফল হিসাবে গণ্য করা হয়। কাঁচা এবং আধ-পাকা পেঁপেগুলির রস বা আঠা থাকে যা উচ্চ ঘনত্বে বিদ্যমান, সেটা জরায়ুগত সংকোচন ঘটিয়ে গর্ভপাতের দিকে নিয়ে যেতে পারে। গবেষণা বলে যে পর পর তিনদিন অপক্ক পেঁপে খেয়ে গর্ভপাত ঘটানো যেতে পারে। আর পাকা ফলটা রোজ খাওয়া একটা ফলপ্রদ জন্মনিরোধক হতে পারে। এছাড়া, গবেষণা এটাও বলে যে পেঁপের মধ্যে থাকা প্যাপাইন বা প্যাপেন প্রোজেস্টেরন (একটা যৌন হরমোন) দমন করে যা গর্ভধারণের জন্য জরায়ুকে প্রস্তুত করার জন্য দরকার। মহিলাদের শরীরে কিছু ঝিল্লি (মেমব্রেন) যা ভ্রুণের বৃদ্ধির জন্য অপরিহার্য সেগুলো প্যাপাইন নষ্ট করে দিতেও পারে। স্তন্যদানের সময় পেঁপে নিরাপদ নাও হতে পারে। এই ব্যাপারে কিছু জল্পনা আছে, এবং গবেষণা খুব একটা স্পষ্ট নয়। পেঁপে খাওয়ার আগে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা বাঞ্ছনীয়
  3. পেঁপে খাদ্যনালী নষ্ট করতে পারে
    মাত্রাতিরিক্ত পেঁপে খাওয়া এসোফেগাস, খাদ্যনালী যা আপনার গলার সাথে পাকস্থলী যুক্ত করে, তা সম্ভবতঃ নষ্ট করতে পারে।
  4. পেঁপে কম রক্ত শর্করা ঘটাতে পারে
    এই বিষয়ে সীমিত গবেষণা হয়েছে, কিন্তু কিছু সূত্র ইঙ্গিত দেয় যে কম রক্ত শর্করায় ভোগা ব্যক্তিরা গ্যাঁজানো পেঁপে খাওয়ার জন্য শর্করা মাত্রায় আরও পতন অনুভব করতে পারেন। যেসমস্ত ব্যক্তি ইতিমধ্যেই কম রক্তচাপে ভুগছেন এটা ব্যাপকভাবে তাঁদের রক্তচাপ কমাতেও পারে। 
  5. পেঁপে পুরুষদের উর্বরতা কমাতে পারে
    পেঁপে বীজের নির্যাসের পুরুষের উর্বরতায় একটা নেতিবাচক প্রভাব থাকে বলে মনে করা হয়। এটা পুরুষদের বীর্যের সক্রিয়তা কমায়। পুরুষ ইঁদুরদের উপর চালানো গবেষণা দেখিয়েছে যে পেঁপে বীজগুলির জলীয় নির্যাস চিকিৎসা ব্যবহার করে যৌন তাড়না এবং বিষবিদ্যাগত রেখাচিত্রের উপর কোনও বিরূপ প্রভাব ছাড়াই পুরুষ ইঁদুরদের ক্ষেত্রে প্রতিবর্তনযোগ্য নির্বীজকরণ (রিভার্সিব্‌ল স্টেরিলিটি) ঘটানো যেতে পারে। পেঁপে বীজ খাওয়া বন্ধ করার 30-45 দিনের মধ্যে উর্বরতা এবং অন্যান্য সম্পর্কিত পরিবর্তনগুলি স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরেছিল।    

পেঁপে ফলের সমগ্র অংশ উপকারী এবং অত্যন্ত হিতকর। পেঁপের বীজ, পাতা এবং ফলটার মাংসল শাঁস, এগুলির সবকটার কিছু গুণমান আছে। যদিও এই ফলের সম্ভাব্য পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া আছে, মাঝারি মাত্রায় এই ফল খাওয়া অধিকতর উপকার করবে এবং আপনাকে সুস্থ রাখবে। সুতরাং আপনার পেঁপে উপভোগ করুন এবং সুস্থ থাকুন।

और पढ़ें ...