myUpchar प्लस+ के साथ पूरेे परिवार के हेल्थ खर्च पर भारी बचत

প্রাচীনতম তৈলবীজগুলির অন্যতম হিসাবে বিবেচিত, তিল বীজ এবং তিল তেল সাম্প্রতিক কালে নাম করতে শুরু করেছে। এই হঠাৎ জনপ্রিয়তার কারণ হল এই যে শেফদের নতুন পরীক্ষাকারী প্রজন্ম এবং সাম্প্রতিক বৈজ্ঞানিক গবেষণাগুলি যা এই তেলের স্বাস্থ্য উপযোগিতাগুলির প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করতে শুরু করেছে। ভারতীয়রা, আফ্রিকার অধিবাসীরা, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াবাসী এবং মধ্য প্রাচ্যের অধিবাসীরা তাঁদের রন্ধনপ্রণালীগুলিতে যুগ যুগ ধরে তিল তেল ব্যবহার করে আসছেন। রান্না ছাড়া, এটা প্রসাধন এবং রোগ নিরাময় উদ্দেশ্যে, এবং ম্যাসাজ এবং চিকিৎসার জন্যও ব্যবহৃত হয়।   

শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে ভূমধ্যসাগরীয় এবং অন্যান্য সংস্কৃতিতে তিল তেল অত্যন্ত বিশেষভাবে গণ্য হয়ে আসছে এবং আয়ুর্বেদীয় চিকিৎসাগুলিতে মালিশের তেল হিসাবে এর ব্যাপক হারে প্রয়োগ দেখা যায়। এটা শরীরে এর উষ্ণ করা এবং আরামদায়ক প্রভাবের কারণে হয়।     

বিভিন্ন নিষ্কাশন প্রক্রিয়া তিল তেলে বিভিন্ন রং এবং রুচিকর সুগন্ধ প্রদান করে। পাশ্চাত্যদেশীয়দের দ্বারা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ব্যবহৃত কোল্ড প্রেস প্রক্রিয়ার উৎপাদনের একটা ফ্যাকাসে হলুদ রং থাকে, কিন্তু ভারতীয় তিল তেলে একটা অধিকতর সোনালি আভা থাকে। তিল তেল, যখন শুকনো তাপে সেঁকা বীজ থেকে প্রস্তুত করা হয়, একটা সুস্পষ্ট বাদামী আভা থাকে এবং রান্নার বদলে একটা সুগন্ধি মাধ্যম হিসাবে ব্যবহার করা হয়।  

একটা পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাট হওয়ায়, তিল তেল আপনার স্বাস্থ্যের জন্য নিশ্চিতভাবে ভাল। এটা ভিটামিন কে, ভিটামিন বি কমপ্লেক্স, ভিটামিন ডি, ভিটামিন ই, এবং ফসফরাসে বিশেষভাবে সমৃদ্ধ। তিল তেলে বিদ্যমান কিছু প্রোটিন চুলের জন্য উপকারী। যদিও পরম্পরাগত তেলগুলির জায়গা নিয়েছে পরিশোধিত তেলগুলি, তামিল নাড়ু এবং অন্ধ্র প্রদেশের কিছু অঞ্চল এখনও তরকারি (কারি) এবং রসা ঝোল (গ্রেভি) তৈরি করার জন্য তিল তেল ব্যবহার করে। ইডলি এবং দোসার সাথে পরিবেশিত মশলা গুঁড়োতেও এটা ব্যবহৃত হয়। নীচু-মানের তেলও সাবান, রং, এবং লুব্রিক্যান্ট, ইত্যাদিতে ব্যবহৃত হয়।    

আয়ুর্বেদ অনুসারে, তিল তেল হচ্ছে বাত ভারসাম্য রাখায় সর্বাধিক কার্যকর এবং কফ দোষের জন্যও ব্যবহৃত হতে পারে, তিনটি দোষ অথবা প্রকৃতির নিয়ন্ত্রক শক্তিগুলির দুটো। এটা অধিকতর সুস্থ দাঁত এবং মাড়ি, এবং মলত্যাগ মসৃণ করার জন্যও ব্যবহৃত হয়।  

তিল তেলের বিষয়ে মূল তথ্যঃ

  • তিল তেলের উদ্ভিদবিজ্ঞান-সংক্রান্ত নাম - সেসামাম ইন্ডিকম
  • জাতি – পেডালিয়াসিয়াই
  • প্রচলিত নাম – তিল
  • সংস্কৃত নাম – তিল
  • দেশীয় অঞ্চল এবং ভৌগোলিক বিস্তৃতি - যদিও সারা বিশ্ব জুড়ে তিল উৎপাদন হয়, বিশ্বের মোট তিল তেল উৎপাদনের 18.3% উৎপাদন করে তিল তেলের প্রধান উৎপাদক হল মায়ানমার। তিল তেলের দ্বিতীয় বৃহত্তম উৎপাদক হচ্ছে চীন, তারপর ভারত।
  • কৌতূহলোদ্দীপক তথ্য - এটা মনে করা হয় যে “এক সহস্র এবং এক রজনী”-তে আলিবাবা গল্পে বিখ্যাত বুলি “খুলে যা সিসেম” প্রকৃতপক্ষে তিল (সেসেমি) গাছের উল্লেখ করে। তিল বীজ একটা শুঁটির আবরণের মধ্যে জন্মে যা পরিণত হলে খুলে যায়। এটা মনে করা হয় যে “খুলে যা সিসেম” ইঙ্গিত করে ধনভাণ্ডারের উদ্ঘাটনের দিকে।   
  1. তিল তেলের পুষ্টিবিধান তথ্য - Sesame oil nutrition facts in Bengali
  2. তিল তেলের স্বাস্থ্য উপযোগিতা - Sesame oil health benefits in Bengali
  3. তিল তেলের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া - Sesame Oil Side Effects in Bengali
  4. মনে রাখার মত মূল তথ্যাদি - Takeaway in Bengali

প্রতি 100 g. তিল তেলে 884 kcal আছে। খনিজ যেমন লোহা এবং ভিটামিন যেমন ভিটামিন ই এবং কে এই তেলকে অত্যন্ত নিরাপদ এবং সর্বাধিক স্বাস্থ্যকর বিকল্পগুলির অন্যতম হিসাবে উপস্থাপিত করে। তিল তেলের মধ্যে থাকা ফ্যাটি অ্যাসিড উপাদান হৃৎপিণ্ডকে সুস্থ রাখতে এবং খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কম রাখতে সাহায্য করে।  

ইউএসডিএ নিউট্রিয়েন্ট ডেটাবেস অনুসারে, 100 g তিল তেলে নীচের পরিপোষকগুলি আছে।

পরিপোষক মান, প্রতি 100 g
শক্তি 884 kcal
চর্বি 100 g
খনিজ  
লোহা 12.86 mg
ভিটামিন  
ভিটামিন ই 1.4 g
ভিটামিন কে 13.6 g
চর্বি/ ফ্যাটি অ্যাসিড  
স্যাচুরেটেড 14.29 g
মোনোআনস্যাচুরেটেড 39.7 g
পলিআনস্যাচুরেটেড 41.7 g

আয়ুর্বেদ এবং অন্যান্য ঐতিহ্যগত ঔষধগুলিতে তিল তেলের ব্যাপক ব্যবহার এই তেলের আরোগ্যকর উপযোগিতার প্রতি নজর দিতে আধুনিক গবেষকদের প্রোৎসাহিত করেছে। এই তেলের নানাবিধ পরিপোষকগুলি একটা ভাল ভারসাম্যযুক্ত এবং স্বাস্থ্যকর জীবন জোরদার করে। চলুন দেখা যাক কিভাবে।  

  • চুলের পুষ্টিবিধান করে: আপনার মাথার খুলি এবং চুলে তিল তেলের একটা পুষ্টিকর প্রভাব থাকে। এই তেল দিয়ে মালিশ শুধুমাত্র আপনার চুলকে ইউভি রশ্মির ক্ষতি থেকে রক্ষা করবে তাই নয় উপরন্তু এটা চুল পাকা রোধ করে এবং আপনার চুলের দণ্ডগুলো শক্ত করে।
  • ত্বকের যত্নের জন্য: তিল তেল ত্বকের সংক্রমণগুলি প্রতিরোধ করে, সূর্যের তাপের ক্ষতি থেকে আপনার ত্বক রক্ষা করে এবং ত্বকের শুষ্কতা কমানোয় সহায়ক। একটা অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট হওয়ায়, তিল তেল ত্বকের বার্ধক্য বিলম্বিত করে। 
  • হাড়ের স্বাস্থ্য উন্নত করে: তিল তেল জিঙ্ক এবং ক্যালসিয়ামের একটা উৎকৃষ্ট উৎস। এই উভয় খনিজ হাড়ের কাঠামো সুস্থ রাখতে সাহায্য করে এবং অস্টিওপোরোসিস রোধ করে। এই তেলে কয়েকটি জৈবসক্রিয় উপাদানও থাকে যা সন্ধিবাতের ক্ষেত্রে প্রদাহ এবং জোড়ের ব্যথা কমায়।
  • তিল তেল দিয়ে মুখ ধোয়া : তিল তেলে প্রাকৃতিক জীবাণু-প্রতিরোধী যৌগ থাকে, যা একে মুখগহ্বর পরিস্কার করা এবং দাঁতের ক্ষয় রোধ করার জন্য একটা চমৎকার বিকল্প হিসাবে উপস্থাপিত করে। তিল তেল দিয়ে মুখের ভিতর পরিস্কার করায় মৌখিক গহ্বরে জীবাণুগত সংখ্যা 85%-এর মত কমে গেছে বলে দেখা গেছে।     
  • হৃৎপিণ্ডের স্বাস্থ্য উন্নত করে: তিল তেলের নিয়মিত ব্যবহার শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা উন্নত করে বলে বিদিত যেহেতু এটা প্রধানতঃ পলি আনস্যাচুরেটেড ফ্যাট দিয়ে গঠিত। একটা সমৃদ্ধ অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট উপাদান থাকায়, তিল তেল অ্যাথেরোস্ক্লোরোসিস প্রতিরোধ করে এবং অক্সিডেটিভ চাপের অধোগামী প্রভাবগুলি থেকে আপনার হৃৎপিণ্ডকে রক্ষা করে।
  • যাঁরা অ্যাস্পিরিন, হেপারিন ইত্যাদির মত অ্যান্টিকোয়াগুল্যান্টগুলো (রক্ত জমাট বাঁধা-প্রতিরোধী ঔষধ) নিচ্ছেন তাঁদের জন্য তিল তেলের ব্যবহার বাঞ্ছনীয় নয়। তিল তেল রক্ত পাতলা করে, সেজন্য উভয় বস্তু একই সঙ্গে নেওয়া ক্ষতিকর হতে পারে।
  • যেসমস্ত ব্যক্তি তিল তেল খান তাঁদের মধ্যে বর্ধিত অ্যালার্জির ঘটনা ঘটতে দেখা গেছে। তিল তেল খাওয়ার পর যদি আপনি অ্যালার্জির কোনও উপসর্গ দেখেন, অবিলম্বে চিকিৎসাগত সাহায্য চান।

বাজারে লভ্য অন্যান্য তেলের তুলনায় তিল তেল এর বহুসংখ্যক স্বাস্থ্য উপযোগিতাগুলির কারণে একটা স্বাস্থ্যকর বিকল্প। যদিও তেলটা এশিয়ায় জনপ্রিয় এবং বহু রন্ধন-সম্পর্কীয়, ঔষধি-সংক্রান্ত এবং শিল্প-সংক্রান্ত ক্ষেত্রে ব্যবহার আছে, এই তেলের ব্যাপক উৎপাদন সীমিত। তিল তেলের নিষ্কাশন প্রক্রিয়া অত্যন্ত ব্যয়বহুল। তিল তেলের ব্যবহারগুলির উপরে গবেষণাও অত্যন্ত সীমিত। এই তেলের ব্যবহার এবং পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলি পুঙ্খানুপুঙ্খ গবেষণা দাবি করে। এই তেলটা কিভাবে ব্যবহার করলে এর সম্পূর্ণ উপকারিতাগুলি সাধন করা যায় এটা একটা গভীরতর উপলব্ধি অর্জন করায় সাহায্য করবে।   

और पढ़ें ...