myUpchar प्लस+ के साथ पूरेे परिवार के हेल्थ खर्च पर भारी बचत

লাউ হচ্ছে অন্যতম স্বাস্থ্যকর সবজি যা আপনি আপনার খাদ্য তালিকার অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। লউকি, ঘিয়া বা দুধি, নামেও পরিচিত এই হাল্কা সবুজ সবজিটি যুগযুগান্ত ধরে ভারতীয় রান্নায় অন্যতম প্রধান খাদ্য হিসাবে বিবেচিত হয়ে আসছে।

এটি একটি উৎকৃষ্ট হাইপোগ্লাইসেমিক (যা আপনার রক্তে শর্করা কমায়) এবং একাধিক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ খাদ্য যা আপনার শরীর বিপাকীয় কার্যপ্রণালী ঠিক রাখে এবং রোগবালাই দূরে রাখে। তবে আপনি যদি লাউয়ের সবজি পছন্দ না করেন তাহলেও আপনার খাদ্য তালিকায় এটির রস পানীয় হিসাবে রাখতে পারেন। এক গ্লাস লাউয়ের রসে এই সবজির সমস্ত গুণাবলী বর্তমান থাকে।  

লাউয়ের রস পানের সেরা সময় হল সকালবেলা। এটি খুব তাড়াতাড়ি জারিত বা অক্সিডাইজ হয়ে যায় বলে রস প্রস্তুতের পর অবিলম্বে এটি খেয়ে ফেলা উচিত।   

লাউ সম্পর্কে কিছু প্রাথমিক তথ্য:

  • বৈজ্ঞানিক নাম: লাজেনানা সিসেরারিয়া
  • পরিবার:    গোর্ড বা অলাবু পরিবার
  • সংস্কৃত নাম :  ক্ষীরতুম্বি বা অলাবু
  • সাধারণ নাম: লউকি বা কদ্দু । সাদা রঙের লাউ বা ক্যালাবাশ গোর্ড, লাউ, লম্বাটে মেলন, নিউ গিনি বিন, এবং ট্যাসমানিয়া বিন।
  • উদ্ভাবন স্থান এবং ভৌগৌলিক বণ্টন:   জানা যায়, লাউ দক্ষিণ আফ্রিকায় উদ্ভূত হয়েছিল। এটি বিশ্বের গ্রীষ্মপ্রধান এবং প্রায় গ্রীষ্মমণ্ডলীয় দেশে উৎপন্ন হয়।
  1. লাউয়ের উপকারিতার তথ্য - Bottle gourd juice nutrition facts in Bengali
  2. স্বাস্থ্যের উপকারের জন্য লাউয়ের রস - Bottle gourd juice health benefits in Bengali
  3. লাউয়ের রসের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া - Bottle gourd juice side effects in Bengali
  4. মনে রাখতে হবে - Takeaway in Bengali

লাউয়ে আছে 96% জল এবং এটি ভাইটামিন C, K, এবং ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ। যেহেতু এর মধ্যে প্রচুর জল থাকে, এটির নির্যাস বার করে নেওয়া সহজ। বাজারে এটি যেমন সহজলভ্য তেমন দামেও কম। এতে স্নেহপদার্থ কম এবং খারাপ কোলেস্টেরল হ্রাস করতে এটি সাহায্য করে। এই সব কারণের জন্য এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পানীয় স্বাস্থ্যসচেতন ব্যক্তিদের কাছে খুব জনপ্রিয়।

USDA নিউট্রিয়্যান্ট ডেটাবেস অনুযায়ী, 100 g  লাউয়ের রসে নিম্নলিখিত পুষ্টি থাকে:

পুষ্টি প্রতি 100 g এ মূল্যমান
জল 95.4 g
শক্তি 14 kcal
প্রোটিন 0.62 g
কার্বোহাইড্রেট 3.39 g
ফাইবার বা তন্তু 0.5 g
স্নেহ পদার্থ 0.02 g
খনিজ পদার্থ  
ক্যালসিয়াম 26 mg
লোহা 0.2 mg
ম্যাগনেসিয়াম 11 mg
ফসফরাস 13 mg
পটাসিয়াম 150 mg
সোডিয়াম 2 mg
দস্তা 0.7 mg
ভাইটামিন  
ভাইটামিন B1 0.029 mg
ভাইটামিন B2 0.022 mg
ভাইটামিন B3 0.32 mg
ভাইটামিন B6 0.04 mg
ভাইটামিন B9 6 µg
ভাইটামিন C 10.1 mg
চর্বি/ফ্যাটি অ্যাসিড  
সম্পৃক্ত 0.002 g
মোনোস্যাচুরেটেড 0.001 g
পলিস্যাচুরেটেড 0.009 g

স্বাস্থ্যের উপকার এবং নিরাময়ের উপাদানে ভরপুর হওয়ায় আপনার খাদ্য তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হতে লাউয়ের রস হচ্ছে আদর্শ পানীয়। বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত লাউয়ের রসের গুণাবলী একবার দেখে নেওয়া যাক।

  • শরীর ঠান্ডা রাখে: জানা যায়, শরীর ঠান্ডা রাখতে লাউয়ের রসের একটি ভূমিকা আছে। গ্রীষ্মের মাসগুলিতে শরীরে জলের অভাব ঠেকাতে এটি একটি উৎকৃষ্ট পানীয়।
  • ওজন কম করে:  ওজন কমানোর জন্য যে খাদ্য তালিকা অনুসরণ করছেন তাঁদের কাছে লাউয়ের রস হচ্ছে একটি কম ক্যালরি এবং কম স্নেহপদার্থ যুক্ত পানীয়। শরীর থেকে টক্সিক বা বিষাক্ত পদার্থ সরায় এবং শরীরে জলীয় পদার্থ যুক্ত করে, সার্বিক ভাবে চর্বি কমায়, এবং অক্সিডেটিভ চাপ কমায় বলে ওজন এবং স্থূলত্ব কমাতে সাহায্য করে।
  • পেটের পক্ষে ভাল:  লাউয়ের রস পেট ঠান্ডা রাখে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। অনেকেই জানেন যে এই পানীয় হজমে সাহায্য করে।
  • ডায়বিটিস বিরোধী:  গবেষণায় প্রমাণিত যে লাউয়ের মণ্ড ডায়বিটিস আক্রান্তদের অগ্ন্যাশয়ের কার্যপ্রক্রিয়ার উন্নতি করে, ফলত রক্তে শর্করার হারের আকস্মিক বৃদ্ধি হয় না। ডায়বিটিসের ক্ষেত্রে এটি হার্টের সমস্যাও কমায়।
  • বার্ধক্য রোধ করে:  লাউয়ের রসে ভাইটামিন C এর মতো অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হচ্ছে প্রাকৃতিক যৌগ যা ত্বকের বয়স কমায় এবং জানা আছে যে ভাইটামিন C ত্বকের কোলাজেন বৃদ্ধি করে এবং আপনার ত্বক টানটান এবং তরতাজা রাখে।
  • মূত্রনালীর সংক্রমণ প্রতিরোধ করে:  শরীরের লাউয়ের রসের একটি ডায়রেটিক (যা প্রস্রাবের হার বাড়িয়ে দেয়) প্রভাব আছে। শরীর থেকে টক্সিন বা বিষাক্ত পদার্থসমূহ এবং প্যাথোজেন বার করে দেয় বলে মুত্রনালী সংক্রমণের ঝুঁকি কমে। লাউয়ের রস পান করলে UTI  উপসর্গের উন্নতি করতে তা সাহায্য করে।
  1. যখন তেঁতো লাগে বুঝতে হবে লাউয়ের রস টক্সিক বা বিষাক্ত
    লাউয়ের রস স্বাস্থ্যের জন্য খুব উপকারী। কিন্তু গবেষণায় দেখা গিয়েছে, যদি লাউয়ের রস তেঁতো হয় তাহলে তা পান করলে শরীরের পক্ষে খুব টক্সিক বা বিষাক্ত প্রতিক্রিয়া হতে পারে এবং মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। বিভিন্ন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া যেমন ডায়রিয়া বা আন্ত্রিক, বমিভাব, অস্বাচ্ছন্দ্য, বা অন্য কোনও ধরনের অস্বাচ্ছন্দ্য দেখা দিতে পারে। সুতরাং, খাওয়ার আগে রসের স্বাদ চেখে নেওয়া জরুরি। যদি উল্লিখিত উপসর্গের একটিও দেখতে পান তাহলে অবিলম্বে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।
     
  2. আন্ত্রিক (গ্যাস্ট্রোইনটেস্টিন্যাল) সমস্যা 
    লাউয়ের তিক্ত রস পান করলে বিভিন্ন রকম সমস্যা যেমন ডুয়োডেনাইটিস (ডুওডেনামে প্রদাহ), গ্যাস্ট্রিক ইরোশন (পাকস্থলীর মিউকোসা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া), গ্যাস্ট্রিক আলসার, এবং ইসোফ্যাসগাইটিস (খাদ্যনালীর প্রদাহ) দেখা দিতে পারে। তেঁতো লাউয়ের রস খেলে আপার গ্যাস্ট্রোইনটেস্টিনাল এলাকায় রক্তপাত পর্যন্ত হতে পারে। 
     
  3. অন্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
  • অতিরিক্ত লাউয়ের রস পান করলে হাইপোগ্লাইসেমিয়া (রক্তে কম শর্করা) হতে পারে।
  • কিছু মানুষের ক্ষেত্রে লাউয়ের রস খেলে অ্যালার্জির উপসর্গ দেখা দিতে পারে।

সুস্থ শরীর এবং মনের জন্য লাউ খুব উপকারী। এর বহু স্বাস্থ্যোপকারিতা আছে। আপনার খাদ্যতালিকায় লাউয়ের রস থাকলে ইতিবাচক পরিবর্তন আসে, আপনাকে সুস্থ রাখে। তবে লাউয়ের রস পানের সময় সতর্কতা প্রয়োজন। এই রসটি ক্ষতিকর হতে পারে কারণ এর মধ্যে এমন কিছু যৌগ আছে যা মানব শরীর গ্রহণ করতে পারে না। সবচেয়ে ভাল হয় যদি আপনি বাড়িতে লাউয়ের রস প্রস্তুত করে নেন, তবে যদি কিনতে চান তাহলে অবশ্যই জৈব লাউ হয় এবং অন্য কোনও সবজির রসের সঙ্গে এটি মেশাবেন না। যদি এটির স্বাদ তিক্ত হয় তাহলে এটি পান করা নিরাপদ নয়।

और पढ़ें ...